আর্কাইভ

Archive for the ‘প্রযুক্তি’ Category

স্যাটেলাইট নিয়ে কোথায় লাফ দিচ্ছেন?

BB-1 satellite 3.pngশামসুল আলম : বাংলাদেশের প্রথম স্যাটেলাইট উৎক্ষেপন নিয়ে বেশ উত্তেজনা ছড়াচ্ছে বিনা ভোটের সরকার। এ উপলক্ষে ঢাকায় আতশবাজি পোড়ানো হবে ১৬ কোটি টাকার। কিন্তু লাফ দৌড় দেয়ার আগে জেনে নিই কিছু ফ্যাক্টস-

১) বাংলাদেশের এই ‘বঙ্গবন্ধু-১’ স্যাটেলাইট প্রকল্পে মোট ব্যয় হচ্ছে ২ হাজার ৯০২ কোটি টাকা। সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে এক হাজার ৫৪৪ কোটি টাকা এবং অবশিষ্ট এক হাজার ৩৫৮ কোটি টাকা ঋণ হিসেবে দিয়েছে বহুজাতিক ব্যাংক এইচএসবিসি।

২) বাংলাদেশের স্যাটেলাইটটি নির্মান করেছে ফ্রান্সের কোম্পানী থালেস এলিনিয়া। থালেসের সাথে চুক্তি হচ্ছে ২৪৯ মিলিয়ন ডলার। ফ্লোরিডার কেপ ক্যানাভেরাল এয়ারফোর্স স্টেশন Falcon 9 FT (Block 5) থেকে উক্ষেপন করা হবে ১০ মে স্থানীয় সময় বিকেল ৪ টায়। বাংলাদেশের যে ধরনের স্যাটেলাইট, তার ডিজাইন খরচ ২৫ মিলিয়ন ডলার, নির্মান খরচ ১০ মিলিয়ন ডলার, আর উৎক্ষেপন খরচ ৩৯ মিলিয়ন ডলার (ছোট স্যাটেলাইটের ক্ষেত্রে)। সব মিলিয়ে ৮০ মিলিয়ন ডলারের মধ্যে সব কাজ শেষ। অথচ এই স্যাটেলাইটের জন্য বাংলাদেশ খরচ করছে তিন গুন ২৪৯ মিলিয়ন ডলার, যা বাংলাদেশ টাকায় ২ হাজার কোটি টাকার মত। এর বাইরে আরও ৯’শ কোটি টাকা কোথায় খরচ হচ্ছে- তা কেউ জানে না। জানতে পারে শেখ হাসিনা ও তার উপদেষ্টা পুত্র!

৩) বাংলাদেশের এই স্যাটেলাইটের জন্য কোনো নিজস্ব অরবিট বরাদ্দ নাই। এর আগে আইটিইউ বাংলাদেশকে নিরক্ষ রেখার ১০২ ডিগ্রি স্লট বরাদ্দ দেয়। কিন্তু প্রভাবশালী দেশের বাধার মুখে তা বাতিল হয়। বিকল্প হিসেবে ৬৯ ডিগ্রিতে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের প্রস্তাব দেওয়া হয় বাংলাদেশকে। কিন্তু তাতেও আপত্তি তোলে মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, চীন। পরে রাশিয়ান কোম্পানী ইন্টারস্পুটনিকের নিজস্ব ১১৯.১ ডিগ্রির স্লট প্রায় ২৮ মিলিয়ন ডলারে ১৫ বছরের জন্য ভাড়া নেয় বাংলাদেশ।

৪) জানা গেছে, ১১৯.১ ডিগ্রির অরবিটাল স্লটটি বাংলাদেশ থেকে অনেক দূরে (প্রায় ৩০ ডিগ্রি পূর্বে)। এটা ফিলিপাইনেরও অারও গভীরে। অরবিটাল স্লট বা নিরক্ষ রেখাটি অস্ট্রেলিয়া থেকে শুরু হয়ে ইন্দোনেশিয়া দিয়ে ফিলিপাইনের পশ্চিমাংশ এবং ভিয়েতনামের পূর্ব দিয়ে চীন হয়ে মঙ্গোলিয়া হয়ে রাশিয়ার ওপর দিয়ে চলে গেছে। ফলে অতোদূর থেকে স্বাভাবিকভাবেই স্যাটেলাইট বাংলাদেশের ফুটপ্রিন্ট (ছবি) গ্রহণে সমস্যা হবে বলে মনে করেন বাংলাদেশ অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল সোসাই‌‌টির সাধারণ সম্পাদক এফ অার সরকার। তিনি বলেন, প্রায় ৩০ ডিগ্রি দূরে স্যাটেলাইট বসালে বাংলাদেশ থেকে তা অ্যাঙ্গুলার হয়ে যাবে। ‘অ্যাঙ্গুলার’ অবস্থান থেকে ছবি নিলে তা ভালো না হওয়ারই আশঙ্কা বেশি। বাংলাদেশের নিজস্ব অরবিটাল স্লটে (৮৮-৯১ ডিগ্রি) এরই মধ্যে রাশিয়ার দুটি, জাপান ও মালয়েশিয়ার একটি করে স্যাটেলাইট উৎক্ষেণ করা হয়েছে। ফলে বাংলাদেশের স্যাটেলাইট থেকে ভালো সার্ভিস পাওয়া না গেলে বিদেশী স্যাটেলাইট থেকে এই সার্ভিস নিবে স্বাভাবিক।

৫) এই স্যাটেলাইট নির্মাণ প্রকল্পটি একটি রাষ্ট্রীয় প্রকল্প। রাষ্ট্রীয় অর্থব্যয়ে এটা নির্মাণ করা হচ্ছে। ফলে এটি বিটিআরসির অধীনেই এর নিয়ন্ত্রণ থাকার কথা। কিন্তু, সরকার কৌশলে এই স্যাটেলাইট নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব দিচ্ছে দরবেশ খ্যাত সালমান এফ রহমানের বেক্সিমকোকে।

৬) একটি স্যাটেলাইটের সাধারন আয়ু ১৫ বছর। কাজেই লাভ লোকসান এই সময়ের মধ্যেই বের করতে হবে। বর্তমানে দেশের স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল, ইন্টারনেট সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন অপারেটর ভাড়া বাবদ প্রতিবছর বিদেশি কোম্পানিকে ১৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার খরচ করে, যুক্তি সরকারের। এই টাকা বাঁচানোর কথা বলে বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার দেশে নিজস্ব স্যাটেলাইট নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করে। স্যাটেলাইট না থাকলে ১৫ বছরে যেখানে খরচ হবে ২১০ মিলিয়ন ডলার, সেখানে এই স্যাটেলাইটের পিছনে খরচ হবে ৩৭৫ মিলিয়ন ডলার+ প্রতিবছর রক্ষণাবেক্ষণ ও স্যাটেলাইট এবং অরবিট ইনশিওরেন্স খরচ। তাহলে এই প্রকল্প করার অর্থ কি?

৭) আওয়ামী সরকারের দাবি, এ কৃত্রিম উপগ্রহে রয়েছে মোট ৪০টি ট্রান্সপন্ডার। এর মধ্যে ২০টি ট্রান্সপন্ডার বাংলাদেশের ব্যবহারের জন্য রাখা হবে। বাকি ২০টি বিদেশি কোনো প্রতিষ্ঠানের কাছে বিক্রি করা হবে। মাত্র সাত বছরেই বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপনের খরচ ৩ হাজার কোটি টাকার পুরোটাই উঠে আসবে বলে হিসেব করেছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। বিটিআরসির হিসাব অনুযায়ী, স্যাটেলাইট থেকে আয়ের ৭০ শতাংশ আসবে বিদেশ থেকে। বাকি মাত্র ৩০ শতাংশ আয় আসবে স্থানীয় পর্যায় থেকে। ১১৯.১ ডিগ্রিতে স্যাটেলাইট বসলে তার ফুটপ্রিন্ট ভালোভাবে পাওয়া যাবে বার্মা, লাওস, ভিয়েতনাম, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইন, অস্ট্রেলিয়া, তাইওয়ান, জাপান, কোরিয়া, চীন ও মঙ্গোলিয়া থেকে। অথচ এসব দেশগুলোর বেশির ভাগেরই নিজস্ব স্যাটেলাইট রয়েছে। অন্যদিকে থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, জাপান, সিঙ্গাপুরের মত দেশের রয়েছে স্যাটেলাইটের কারখানা। এই দেশগুলো নিজেরাই বাণিজ্যিকভাবে স্যাটেলাইট ভাড়া দেয় দীর্ঘদিন ধরে। তাহলে এইসব দেশগুলো থেকে যে ব্যবসার গল্প করা হচ্ছে, তা কোনো দিনই আসবে না। মোটকথা, এই স্যাটেলাইট প্রকল্প বাংলাদেশের জন্য তো লাভজনক হবেই না, উল্টো গলার কাটাও হতে পারে।

কাজেই, কোথায় লাফ দিচ্ছেন, দেখে শুনে দিয়েন!

এতো ভেতরের খবর না জানা থাকলেও শুরু থেকেই এই বঙ্গবন্ধু নামের স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ নিয়ে আমার মনে হয়েছিলো এটা নিয়ে বড় ধরণের আর্থিক অনিয়ম হবে । এই প্রকল্প যে সঠিকভাবে চিন্তা-ভাবনা করা হয়নি সেটা উপরের লেখা থেকে সুস্পষ্ট । আওয়ামী লীগ ভারত-রাশিয়া বান্ধব দল হিসেবে পরিচিত । তারা কেনো রাশিয়াকে দিয়ে অপেক্ষাকৃত কম মূল্যে স্যাটেলাইট ডিজাইন ও নির্মাণ করিয়ে ভারতকে দিয়ে অনেক সুলভ মূল্যে উৎক্ষেপণ করালো না? এ প্রশ্ন সব সময়-ই মাথায় ঘুরপাক খেয়েছে । “অন্যদিকে থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, জাপান, সিঙ্গাপুরের মত দেশের রয়েছে স্যাটেলাইটের কারখানা।” — উপরের লেখায় এই বক্তব্য দ্বারা লেখক কি বোঝাতে চেয়েছেন?

Advertisements

বঙ্গবন্ধু ১ স্যাটেলাইটের আদ্যোপান্ত

BB-1 satellite 4তানিয়া তুষ্টি : স্বপ্নের স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু ১ মহাকাশ স্পর্শ করবে আজ। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় বিকাল চারটায় (বাংলাদেশ সময় ১১ মে, রাত ৩টা) মহাকাশের উদ্দেশে উড়াল দেবে। স্যাটেলাইট তৈরির কাজ শেষে গত ৩০ মার্চ এটি উৎক্ষেপণের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় পাঠানো হয়। যুক্তরাষ্ট্রের বেসরকারি মহাকাশ অনুসন্ধান ও প্রযুক্তি কোম্পানি ‘স্পেসএক্স’ এর ফ্যালকন ৯ রকেট ফ্লোরিডার কেইপ কেনাভেরালের লঞ্চিং প্যাড থেকে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটকে নিয়ে মহাকাশের পথে উড়াল দেবে।এবার এক নজরে দেখে নেওয়া যাক বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের আদ্যোপান্ত।

মহাকাশ জয়ে বাংলাদেশ

রচিত হতে যাচ্ছে বাংলাদেশের মহাকাশ জয়ের গল্প। মহাকাশে নিজস্ব মালিকানার স্যাটেলাইট যাত্রার সব বন্দোবস্ত সমাপ্ত করেছে বাংলাদেশের প্রথম বঙ্গবন্ধু ১। যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে স্যাটেলাইটটি উৎক্ষেপণ করা হবে। উৎক্ষেপণের সময় নির্ধারণ করা হয়েছে বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় রাত ২টা ১২ মিনিট থেকে ৪টা ২২ মিনিটের মধ্যে। স্যাটেলাইটটি উৎক্ষেপণ সফল হলে বিশ্বের ৫৭তম দেশ হিসেবে নিজস্ব স্যাটেলাইটের মালিক হবে বাংলাদেশ। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে এই স্যাটেলাইটের মাধ্যমে ইন্টারনেট ও টেলিযোগাযোগ সেবার সম্প্রসারণ আরও বেগবান হবে। দুর্যোগ পরিস্থিতি মোকাবিলাসহ যে কোনো জরুরি পরিস্থিতিতে সহায়তার নতুন মাত্রা যোগ হবে। স্যাটেলাইটভিত্তিক টেলিভিশন সেবা ডিটিএইচ (ডিরেক্ট টু হোম) ও জাতীয় নিরাপত্তা নিশ্চিত করার কাজেও এ স্যাটেলাইটকে কাজে লাগবে। স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় অবস্থান করা বাংলাদেশিদের মধ্যে এখন চলছে উৎসবের আমেজ। তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিমের নেতৃত্বে ৩০ সদস্যের একটি সরকারি প্রতিনিধি দল সেখানে অবস্থান করছে। আগামী ১৫ বছরের জন্য মহাকাশের স্থায়ী বাসিন্দা হবে ‘বঙ্গবন্ধু ১ স্যাটেলাইট’। বাংলাদেশ প্রথম স্যাটেলাইট নিয়ে কাজ শুরু করে ২০০৭ সালে। সে সময় মহাকাশের ১০২ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমাংশে কক্ষপথ বরাদ্দ চেয়ে জাতিসংঘের অধীন সংস্থা আন্তর্জাতিক টেলিযোগাযোগ ইউনিয়নে (আইটিইউ) আবেদন করে। কিন্তু বাংলাদেশের ওই আবেদনে ২০টি দেশ আপত্তি জানায়। এরপর ২০১৩ সালে রাশিয়ার ইন্টারস্পুটনিকের কাছ থেকে বঙ্গবন্ধু ১ স্যাটেলাইটের বর্তমান কক্ষপথটি কেনা হয়। মহাকাশে বঙ্গবন্ধু ১ স্যাটেলাইটের অবস্থান হবে ১১৯ দশমিক ১ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমাংশে। এই কক্ষপথ থেকে বাংলাদেশ ছাড়াও সার্কভুক্ত সব দেশ, ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইন, মিয়ানমার, তাজিকিস্তান, কিরগিজস্তান, উজবেকিস্তান, তুর্কমেনিস্তান ও কাজাখস্তানের কিছু অংশ এই স্যাটেলাইটের আওতায় আসবে। জাতিসংঘের মহাকাশবিষয়ক সংস্থা ইউনাইটেড নেশনস অফিস ফর আউটার স্পেস অ্যাফেয়ার্সের (ইউএনওওএসএ) হিসাবে, ২০১৭ সাল পর্যন্ত মহাকাশে স্যাটেলাইটের সংখ্যা হয়েছে ৪ হাজার ৬৩৫। প্রতি বছরই স্যাটেলাইটের এ সংখ্যা ৮ থেকে ১০ শতাংশ হারে বাড়ছে। এসব স্যাটেলাইটের কাজের ধরনও একেক রকমের। বঙ্গবন্ধু ১ স্যাটেলাইটটি বিভিন্ন ধরনের মহাকাশ যোগাযোগের কাজে ব্যবহার করা হবে। এ ধরনের স্যাটেলাইটকে বলা হয় ‘জিওস্টেশনারি কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট’। পৃথিবীর ঘূর্ণনের সঙ্গে সঙ্গে এ স্যাটেলাইট মহাকাশে ঘুরতে থাকে। বঙ্গবন্ধু ১ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের মুহূর্তটি বাংলাদেশ টেলিভিশনসহ দেশের সব কটি বেসরকারি টেলিভিশন সরাসরি সম্প্রচার করবে। দুর্লভ এ মুহূর্ত সরাসরি প্রচারের ব্যবস্থা নিতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ দেশের সব জেলা ও উপজেলা প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছে। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণকারী প্রতিষ্ঠান স্পেসএক্সও উৎক্ষেপণ মুহূর্তটি সরাসরি সম্প্রচার করবে। কেনেডি স্পেস সেন্টারের দুটি স্থান থেকে আগ্রহী দর্শনার্থীরা এই উৎক্ষেপণ দেখতে পারবেন। একটি স্থান অ্যাপোলো সেন্টার, উৎক্ষেপণস্থল থেকে দূরত্ব ৬ দশমিক ২৭ কিলোমিটার। উৎক্ষেপণের দৃশ্য কেনেডি স্পেস সেন্টারের মূল দর্শনার্থী ভবন (মেইন ভিসিটর কমপ্লেক্স) থেকেও দেখা যাবে। উৎক্ষেপণস্থল থেকে এটির দূরত্ব ১২ কিলোমিটার। স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের এ মুহূর্তের সাক্ষী হতে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য-প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল কেনেডি স্পেস সেন্টারে উপস্থিত থাকবে।

বঙ্গবন্ধু উৎক্ষেপণের ধাপ

বঙ্গবন্ধু ১ স্যাটেলাইট তৈরি হয়েছে ফ্রান্সের থ্যালাস এলিনিয়া স্পেস ফ্যাসিলিটিতে। স্যাটেলাইটের কাঠামো তৈরি, উৎক্ষেপণ, ভূমি ও মহাকাশের নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা, ভূস্তরে দুটি স্টেশন পরিচালনার দায়িত্ব এ প্রতিষ্ঠানটির। স্যাটেলাইটটি তৈরির পর প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে পর্যালোচনা ও হস্তান্তর করা হয়। হস্তান্তরের জন্য বেছে নেওয়া হয় বিশেষ কার্গো বিমান। বিমানটি কেইপ কেনাভেরালের লঞ্চ সাইটে পাঠানো হয়। মহাকাশে উৎক্ষেপণের পর বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট ১ পরিচালনা, সফল ব্যবহার ও বাণিজ্যিক কার্যত্রমের জন্য ইতিমধ্যে সরকারি মালিকানাধীন ‘বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেড’ নামে একটি কোম্পানি গঠন করা হয়েছে। নতুন এই কোম্পানিতে কারিগরি লোকবল নিয়োগ এবং তাদের প্রশিক্ষণও দেওয়া হয়েছে। মার্কিন রকেট নির্মাতা প্রতিষ্ঠান স্পেসএক্স এই স্যাটেলাইটটি উৎক্ষেপণ করবে। যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার কেইপ কেনাভেরালে কেনেডি স্পেস সেন্টারে স্পেসএক্সের লঞ্চ প্যাড থেকে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট ১ নিয়ে উড়বে ‘ফ্যালকন নাইন’ রকেট।

এই রকেটের রয়েছে চারটি অংশ। ওপরের অংশে থাকবে স্যাটেলাইট, তারপর থাকবে অ্যাডাপটর। এরপর স্টেজ ২ এবং সবচেয়ে নিচে থাকবে স্টেজ ১। একটি নির্দিষ্ট সময়ের পর রকেটের স্টেজ ১ খুলে নিচের দিকে নামতে থাকবে। এরপর চালু হবে স্টেজ ২। পুনরায় ব্যবহারযোগ্য স্টেজ ১ পৃথিবীতে এলেও স্টেজ ২ একটি নির্দিষ্ট দূরত্ব পর্যন্ত স্যাটেলাইটকে নিয়ে গিয়ে মহাকাশেই থেকে যাবে। উৎক্ষেপণ দেখতে আগ্রহীদের অপেক্ষা করতে হবে উৎক্ষেপণ স্থানের তিন থেকে চার কিলোমিটার দূরে। সাত মিনিটের কম সময় রকেটটি দেখা যাবে। তার পরপরই উচ্চগতির রকেট চলে যাবে দৃষ্টিসীমার একদম বাইরে।

দুইটি ধাপে এই উৎক্ষেপণ প্রক্রিয়া শেষ হবে। প্রথম ধাপটি হলো লঞ্চ অ্যান্ড আরলি অরবিট ফেইজ (এলইওপি) এবং দ্বিতীয় ধাপ হচ্ছে স্যাটেলাইট ইন অরবিট। এলইওপি ধাপে ১০ দিন এবং পরের ধাপে ২০ দিন লাগবে। উৎক্ষেপণ স্থান থেকে ৩৬ হাজার কিলোমিটার দূরে যাবে এই স্যাটেলাইট। ৩৫ হাজার ৭০০ কিলোমিটার যাওয়ার পর রকেটের স্টেজ ২ খুলে যাবে। স্যাটেলাইট উন্মুক্ত হওয়ার পরপর এর নিয়ন্ত্রণ যুক্তরাষ্ট্র, ইতালি এবং কোরিয়ার তিনটি গ্রাউন্ড স্টেশনে চলে যাবে। এই তিন স্টেশন থেকে স্যাটেলাইটটিকে নিয়ন্ত্রণ করে এর নিজস্ব কক্ষপথে (১১৯.১ পূর্ব দ্রাঘিমাংশে অরবিটাল স্পট) স্থাপন করা হবে।

স্যাটেলাইটটি পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে আনতে প্রায় ২০ দিন লাগবে। স্যাটেলাইটটি সম্পূর্ণ চালু হওয়ার পর এর নিয়ন্ত্রণ বাংলাদেশের গ্রাউন্ড স্টেশনে হস্তান্তর করা হবে। স্যাটেলাইটের গ্রাউন্ড স্টেশন স্থাপন করা হয়েছে গাজীপুরের জয়দেবপুর ও রাঙামাটির বেতবুনিয়ায়।

স্যাটেলাইট কমিউনিকেশন কী

স্যাটেলাইট কমিউনিকেশন বলতে সহজ ভাষায় বলা যায়, স্যাটেলাইটের মাধ্যমে তথ্যের আদান-প্রদান। এই ব্যবস্থায় শূন্যে উৎক্ষেপিত বিভিন্ন ধরনের স্যাটেলাইট ভূপৃষ্ঠ থেকে বিভিন্ন উচ্চতায় অবস্থান করে পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করতে থাকে। তথ্যের আদান-প্রদান হয় স্যাটেলাইটের সঙ্গে পৃথিবীতে স্থাপিত কোনো আর্থ স্টেশনের। কোনো ডিভাইসের অথবা একটি স্যাটেলাইটের সঙ্গে আরেকটি স্যাটেলাইটের যোগাযোগ হয়। অর্থাৎ সাধারণভাবে যোগাযোগ বলতে আমরা প্রেরক এবং প্রাপকের মধ্যে তথ্যের আদান-প্রদানকে বুঝি। প্রতিটি স্যাটেলাইটের জন্য একটি নির্দিষ্ট সীমানা নির্ধারিত থাকে। এই সীমানার মধ্যেই স্যাটেলাইটটি ফোকাস করা থাকে এবং তার কাজের পরিসীমাও এর মধ্যেই সীমাবদ্ধ। এই সীমানাকে বলা হয় ফুটপ্রিন্ট। আবার কিছু স্যাটেলাইট তার সিগন্যালের দিক পরিবর্তন করে কাভারেজ অঞ্চল পরিবর্তনও করতে পারে। মহাকাশে নানারকম স্যাটেলাইটের অবস্থান রয়েছে। এর মধ্যে জিইও স্যাটেলাইট একটি নির্দিষ্ট গতিতে পৃথিবীর চারপাশে ঘুরতে থাকে। এটি ভূপৃষ্ঠ থেকে ৩৬০০০ কিলোমিটার ওপরে থাকে। জিইও স্যাটেলাইটের গড় আয়ু তাই ধরা হয় ১৫ বছর। ব্যবহার করা হয় টিভি ও রেডিও ব্রডকাস্টিং, আবহাওয়ার খবর জানতে এবং পৃথিবীর টেলিফোন ব্যবস্থার মেরুদণ্ড হিসেবে।

এলইও স্যাটেলাইটটি ভূপৃষ্ঠের সবচেয়ে কাছে থেকে প্রদক্ষিণ করতে থাকে। হাই কোয়ালিটি টেলিফোন কমিউনিকেশন কোম্পানি এই স্যাটেলাইট ব্যবহার করে।

এই স্যাটেলাইট জিও স্টেশনারি এবং লোয়ার আর্থ স্যাটেলাইটের মাঝামাঝি উচ্চতায় থেকে পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করে। ভূপৃষ্ঠ থেকে এর গড় উচ্চতা ১০০০০ কিলোমিটার। মাত্র ১২টি মিডিয়াম আর্থ স্যাটেলাইট দিয়েই পুরো পৃথিবীতে সংযোগ দেওয়া সম্ভব যা জিও স্টেশনারির চেয়ে বেশি হলেও লোয়ার আর্থের চেয়ে অনেক কম।

হম্যান স্যাটেলাইটগুলো উপবৃত্তাকার হয়। এটি মূলত জিও স্টেশনারী স্যাটেলাইট দ্বারা গন্তব্যের অরবিটে সিগন্যাল পাঠাতে ব্যবহৃত হয়।

লোয়ার আর্থ অরবিট স্যাটেলাইটও এটি ব্যবহার করে।

প্রোগ্র্যাড স্যাটেলাইটগুলো পৃথিবীর ঘূর্ণনের দিকেই ঘুরতে থাকে। এগুলোর অরবিটের সঙ্গে পৃথিবীর কোণ এক সমকোণের চেয়ে কম।

রেট্রোগ্রাড স্যাটেলাইটগুলো পৃথিবীর ঘূর্ণনের বিপরীত দিকে ঘুরতে থাকে। এগুলোর অরবিটের সঙ্গে পৃথিবীর কোণ এক সমকোণের চেয়ে বেশি।

পোলার স্যাটেলাইট কেন্দ্রাভিমুখী বলের কারণে এবং সূর্য ও চাঁদের আকর্ষণের কারণে ক্রমাগত স্যাটেলাইটের ক্ষতি হতে থাকে।

এক নজরে বঙ্গবন্ধু

দেশের প্রথম স্যাটেলাইটটির ওজন তিন দশমিক ৭ মেট্রিক টন। এটি মহাকাশে অবস্থান করবে ১৫ বছর। সর্বমোট খরচ ধরা হয়েছিল ২ হাজার ৯৬৭ কোটি টাকা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত প্রকল্পটি বাস্তবায়নে খরচ হয়েছে ২ হাজার ৭৬৫ কোটি টাকা। মোট খরচে সরকারি অর্থ ১ হাজার ৩১৫ কোটি ৫১ লাখ টাকা এবং বিদেশি অর্থায়ন থাকবে ১ হাজার ৬৫২ কোটি ৪৪ লাখ টাকা। বাংলাদেশকে এই ঋণ দিয়েছে বহুজাতিক ব্যাংক এইচএসবিসি। নিজস্ব কক্ষপথ ১১৯.১ পূর্ব দ্রাঘিমাংশে স্থাপন করা হবে। স্যাটেলাইটটি উৎক্ষেপণের পর পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে আনতে সময় লাগবে প্রায় ২০ দিন। আমাদের স্যাটেলাইটে লেখা থাকবে বিবি এবং একটি সরকারি লোগো। বঙ্গবন্ধু ১ এর গ্রাউন্ড স্টেশন স্থাপন করা হয়েছে গাজীপুরের জয়দেবপুর ও রাঙামাটির বেতবুনিয়ায়। স্যাটেলাইট তৈরির পুরো কাজটি বাস্তবায়িত হয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) তত্ত্বাবধানে। তিনটি ধাপে এই কাজ হয়েছে। এগুলো হলো- স্যাটেলাইটের মূল কাঠামো তৈরি, স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ ও ভূমি থেকে নিয়ন্ত্রণের জন্য গ্রাউন্ড স্টেশন তৈরি। বঙ্গবন্ধুু ১ স্যাটেলাইটের মূল অবকাঠামো তৈরি করেছে ফ্রান্সের মহাকাশ সংস্থা থ্যালেস অ্যালেনিয়া স্পেস। স্যাটেলাইট তৈরির কাজ শেষে গত ৩০ মার্চ এটি উৎক্ষেপণের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় পাঠানো হয়। যুক্তরাষ্ট্রের বেসরকারি মহাকাশ অনুসন্ধান ও প্রযুক্তি কোম্পানি ‘স্পেসএক্স’ এর ফ্যালকন ৯ রকেট ফ্লোরিডার কেইপ কেনাভেরালের লঞ্চিং প্যাড থেকে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটকে নিয়ে মহাকাশের পথে উড়াল দেবে। স্যাটেলাইট তৈরি এবং ওড়ানোর কাজটি বিদেশে হলেও এটি নিয়ন্ত্রণ করা হবে বাংলাদেশ থেকেই। এ জন্য গাজীপুরের জয়দেবপুরে তৈরি গ্রাউন্ড কন্ট্রোল স্টেশন (ভূমি থেকে নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা) স্যাটেলাইট নিয়ন্ত্রণের মূল কেন্দ্র হিসেবে কাজ করবে। আর বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করা হবে রাঙামাটির বেতবুনিয়া গ্রাউন্ড স্টেশন।

বিশ্বের স্যাটেলাইট কাহিনী

মহাকাশে প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ ১৯৫৭ সালের ৪ অক্টোবর উৎক্ষেপণ করে সোভিয়েত ইউনিয়ন। উৎক্ষেপিত স্পুটনিক ১ নামের কৃত্রিম উপগ্রহটির নকশা করেছিলেন সের্গেই করালিওভ নামের একজন ইউক্রেনীয়। একই বছর সোভিয়েত ইউনিয়ন মহাকাশে দ্বিতীয় কৃত্রিম উপগ্রহ স্পুটনিক ২ উৎক্ষেপণ করে। স্পুটনিক ২ লাইকা নামের একটি কুকুর বহন করে নিয়ে যায়। অবশ্য উৎক্ষেপণের কয়েক ঘণ্টার মধ্যে তাপনিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার ত্রুটির কারণে লাইকা মারা যায়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৪৫ সালে মহাকাশে কৃত্রিম উপগ্রহ পাঠানোর পরিকল্পনা করে। তাদের পরিকল্পনা সফল হয় ১৯৫৮ সালের ৩১ জানুয়ারি। তাদের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ এক্সপ্লোরার ১ এদিন মহাকাশে উৎক্ষেপণ করা হয়।

ভারতের প্রথম মহাকাশ উপগ্রহ অ্যাস্ট্রোসাট। আবহাওয়া সংক্রান্ত কৃত্রিম উপগ্রহ ভ্যানগার্ড ২। ১৯৫৯ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি এটি উৎক্ষেপিত হয়েছিল। এটি আবহাওয়া সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহ করে পৃথিবীতে পাঠাতে পারত। ১৯৬০ সালের ১ এপ্রিল টাইরোস ১ পৃথিবী থেকে উৎক্ষেপিত হয়। এটি বিস্তারিতভাবে পৃথিবীর আবহাওয়া সংক্রান্ত ছবি পাঠাতে সক্ষম হয়। ওই বছরই ২৩ নভেম্বর টাইরোস ২ পৃথিবী থেকে বিচ্ছুরিত ইনফ্রারেড বা অবলোহিত রশ্মি পরিমাপ করে এবং আবহাওয়ার ছবিও সংগ্রহ করে। ১৯৬১ সালের ১২ জুলাই নিক্ষিপ্ত টাইরোস ৩ আটলান্টিক মহাসাগরের হারিকেন ইথার নামক ঝড় প্রথম আবিষ্কার করে। এক্ষেত্রে হারিকেনের কারণে যেসব অঞ্চল আক্রান্ত হতে পারে সেসব অঞ্চলকে আগেই সতর্ক করা হয়। এই ধারাবাহিক উপগ্রহমালার অনেক উপগ্রহ নিক্ষিপ্ত হয় যা তাপমাত্রা নির্ণয় করে মহাকাশে ইলেকট্রনের ঘনত্বের পরিমাপ করে। টাইরোস উপগ্রহমালার পর ঈসা এবং তারপর নিঃশ্বাস উপগ্রহমালা মহাকাশে নিক্ষিপ্ত হয়। ১৯৬৬ সালের ১৫ মে নিক্ষিপ্ত নিঃশ্বাস ২ উপগ্রহ পৃথিবীর উত্তাপের ভারসাম্য পরিমাপ করে। নিঃশ্বাস ১ হারিকেন ডেটার অনুসন্ধান দেয়। মানুষ জীবন ও ধনসম্পত্তির ক্ষতি প্রতিরোধ করার জন্য আবহাওয়া সংক্রান্ত স্যাটেলাইটগুলো হারিকেন, বন্যা ও অগ্নিকাণ্ড সম্পর্কে আগেই সতর্কতা প্রদান করে থাকে। প্রায় সব স্যাটেলাইট মেঘের ফটোগ্রাফ গ্রহণ করে। ম্যাগনেটিক টেপে সংবাদ জমা করে এবং তারপর টেলিমিটার দিয়ে গ্রাউন্ড স্টেশনে রক্ষিত কম্পিউটারে সোজাসুজি প্রেরণ করে। পৃথিবীর ওপর সে সময় অবস্থানকারী মেঘের প্রণালীর ছবি পুনরুৎপাদনে সক্ষম হয়। ২০০৯ সালে ১০ ফেব্রুয়ারি আমেরিকার কৃত্রিম উপগ্রহ ইরিডিয়াম ৩৩ এবং রাশিয়ার কসমস ২২৫১ উপগ্রহের ধাক্কা লাগে। ঘটনাটি ঘটে সাইবেরিয়ার ৭৮৯ কিলোমিটার ওপরে। কৃত্রিম উপগ্রহের সম্মুখ সংঘাতের ঘটনা এটিই প্রথম।

কৃত্রিম উপগ্রহ এমনভাবে পৃথিবীর চতুর্দিকে ঘূর্ণায়মান হয়, যাতে এর গতির সেন্ট্রিফিউগাল বা বহির্মুখীন শক্তি ওকে বাইরের দিকে গতি প্রদান করে। কিন্তু পৃথিবীর মাধ্যাকর্ষণ শক্তি একে পৃথিবীর আওতার বাইরে যেতে দেয় না। যেহেতু মহাকাশে বায়ুুর অস্তিত্ব নেই, তাই এটি বাধাহীনভাবে পরিক্রমণ করে। কৃত্রিম উপগ্রহগুলো বৃত্তাকারে পরিক্রমণ করে না, তার গতি ডিম্বাকৃতির। টিভি ও বেতারসংকেত প্রেরণ এবং আবহাওয়া পর্যবেক্ষণকারী কৃত্রিম উপগ্রহগুলো সাধারণত পৃথিবী থেকে ৩৬ হাজার কিলোমিটার দূরে অবস্থান করে। পৃথিবী থেকে বেতার তরঙ্গ ব্যবহার করে তথ্য পাঠানো হয়, কৃত্রিম উপগ্রহ সেগুলো গ্রহণ করে এবং বিবর্ধিত করে পৃথিবীতে প্রেরণ করে। কৃত্রিম উপগ্রহ দুইটি ভিন্ন কম্পাঙ্কের তরঙ্গ ব্যবহার করে সিগনাল (তথ্য) গ্রহণ এবং পাঠানোর জন্য। কৃত্রিম উপগ্রহ থেকে পৃথিবীতে আসা সিগনাল অনেক দুর্বল বা কম শক্তিসম্পন্ন হয়ে থাকে, তাই প্রথমে ডিশ এন্টেনা ব্যবহার করে সিগন্যালকে কেন্দ্রীভূত করা হয় এবং পরে রিসিভার দিয়ে গ্রহণ করে প্রয়োজনীয় কাজে ব্যবহার করা হয়।

কৃত্রিম উপগ্রহগুলোর উৎক্ষেপণের সময়ই পর্যাপ্ত জ্বালানি গ্রহণ করতে হয়। কারণ মহাকাশে রিফুয়েলিংয়ের কোনো সুযোগ নেই। তবে কিছু উপগ্রহ জ্বালানি হিসেবে সৌরশক্তি ব্যবহার করে। এদের গায়ে সৌরকোষ লাগানো থাকে, যা ব্যবহার করে থেকে সে সূর্য থেকে তার প্রয়োজনীয় শক্তি গ্রহণ করে। এদিকে বাংলাদেশের তিন শিক্ষার্থীর তৈরি করা প্রথম ন্যানো স্যাটেলাইট ‘ব্র্যাক অন্বেষা’ আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন থেকে উৎক্ষেপণের পর পৃথবীর কক্ষপথে প্রদক্ষিণ শুরু করেছে। ন্যানো স্যাটেলাইটটি পৃথিবী থেকে ৪০০ কিলোমিটার ওপরে অবস্থান করে। পৃথিবীর চারপাশে প্রদক্ষিণ করতে সেটি সময় নেয় ৯০ মিনিটের মতো।

সাশ্রয় হবে ১৪ মি ডলার

আমাদের দেশে এখন প্রায় ৩০টি স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল সম্প্রচারে আছে। এসব চ্যানেল সিঙ্গাপুরসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে স্যাটেলাইট ভাড়া নিয়ে পরিচালিত হচ্ছে। সরকারের পক্ষ থেকে আশা করা হচ্ছে, এসব চ্যানেলের জন্য বর্তমানে বিদেশি স্যাটেলাইটের ভাড়া বাবদ প্রায় ১৪ মিলিয়ন ডলার ব্যয় হয়। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ সফল হলে বিপুল পরিমাণ এই অর্থ সাশ্রয় হবে। উপরন্তু বিদেশে ভাড়া দিয়ে বৈদেশিক মুদ্রা দেশে আনা সম্ভব হবে বলেও জানিয়েছেন বিটিআরসি। এই স্যাটেলাইটের ৪০টি ট্রান্সপন্ডারের মধ্যে ২০টি ভাড়া দেওয়ার জন্য রাখা হবে। পাঁচ হাজার কোটি টাকার অনুমোদিত মূলধন নিয়ে ‘বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেড’ গঠন করা হয়েছে। এই কোম্পানি স্যাটেলাইটের ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব পালন করবে। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট প্রকল্প ইতিমধ্যে আন্তর্জাতিক টেলিকমিউনিকেশন সংস্থার (আইটিইউ) ‘রিকগনিশন অব এক্সিলেন্স’ পুরস্কারও পেয়েছে।

= = =

বাংলাদেশের প্রথম স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১ ‘কমিউনিকেশন অ্যান্ড ব্রডকাস্টিং’ ক্যাটাগরির এ স্যাটেলাইট। অর্থাৎ, এটি যোগাযোগ এবং সম্প্রচার কাজেই মূলত ব্যবহার করা হবে। এ স্যাটেলাইটে থাকছে ৪০টি ট্রান্সপন্ডার সক্ষমতা। প্রতিটি ট্রান্সপন্ডার প্রায় ৩৬ মেগাহার্টজ বেতার তরঙ্গের সমপরিমাণ। অর্থাৎ ৪০টি ট্রান্সপন্ডার থেকে পাওয়া যাবে প্রায় এক হাজার ৪৪০ মেগাহার্টজ পরিমাণ বেতার তরঙ্গ বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট থেকে। এর মধ্যে ২০টি ট্রান্সপন্ডার বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ প্রয়োজনে ব্যবহার করবে। আর ২০টি ট্রান্সপন্ডার বিদেশি রাষ্ট্রের কাছে ভাড়া দেওয়ার জন্য রাখা হবে।

৪০টি ট্রান্সপন্ডারের মধ্যে ২৬টি হচ্ছে কেইউ ব্যান্ডের এবং ১৪টি সি ব্যান্ডের। গাজীপুর ও চট্টগ্রামের বেতবুনিয়ায় স্থাপিত দুটি ভূ-উপগ্রহ কেন্দ্র থেকে নিয়ন্ত্রিত হবে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট। এর মধ্যে গাজীপুর প্রধান কেন্দ্র হিসেবে এবং বেতবুনিয়া বিকল্প কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহূত হবে। এরই মধ্যে প্রস্তুত হয়ে গেছে দুটি ভূ-উপগ্রহ কেন্দ্র। এ ছাড়া বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের বাণিজ্যিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য গঠিত হয়েছে পৃথক একটি রাষ্ট্রায়ত্ত কোম্পানি।

বর্তমানে বাংলাদেশের বিভিন্ন স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল প্রতিবছর অন্যান্য দেশের স্যাটেলাইট পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠানকে প্রায় দেড় কোটি মার্কিন ডলার সমপরিমাণ অর্থ ভাড়া হিসেবে পরিশোধ করে। বাংলাদেশের নিজস্ব স্যাটেলাইটের মাধ্যমে সম্প্রচার কার্যক্রম পরিচালিত হলে এ অর্থ বাংলাদেশেই থেকে যাবে। ফলে বড় অঙ্কের টাকার বৈদেশিক মুদ্রাও সাশ্রয় হবে। দেশের বেসরকারি টেলিভিশনগুলোর স্যাটেলাইট ভাড়াবাবদ ব্যয়ও কমে আসবে। এ ছাড়া স্যাটেলাইট থেকে পাওয়া যাবে উচ্চগতির ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ। ফলে ব্যান্ডউইথের বিকল্প উৎসও পাওয়া যাবে। এই ব্যান্ডউইথ ব্যবহার করে দেশের দুর্গম দ্বীপ, নদী ও হাওর এবং পাহাড়ি অঞ্চলে স্যাটেলাইট প্রযুক্তিতে নিরবচ্ছিন্ন টেলিযোগাযোগ সেবা চালুও সম্ভব হবে। ফলে প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে স্বাভাবিক টেলিযোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হলেও উদ্ধারকর্মীরা স্যাটেলাইট ফোনে যোগাযোগ রেখে দুর্গত এলাকায় কাজ করতে সক্ষম হবেন।

বাকি ২০টি ট্রান্সপন্ডার ভুটান, নেপাল ও এশিয়ার অন্য অংশে কিরগিজস্তান, তাজিকিস্তানের মতো দেশেও ভাড়া দেওয়া যাবে। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশ বছরে প্রায় ৫০০ কোটি টাকা আয় করতে সমর্থ হবে।

= = =

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটটি ফ্লোরিডার কেপ ক্যানার্ভেল (কেনেডি স্পেস সেন্টার) থেকে উৎক্ষেপণ করা হয়েছে। কাজটি সম্পন্ন হয়েছে আমেরিকার অ্যালান মাস্কের মালিকাধীন স্পেস এক্স কোম্পানির ফ্যালকন রকেটের মাধ্যমে। উৎক্ষেপণের ৩০ থেকে ৪০ মিনিটের মাথায় ১৫ হাজার কিলোমিটার উচ্চতায় আবর্তন পথে নিয়ে যায়। এরপর উপগ্রহটি তার সৌর প্যানেলটি আংশিক প্রসারিত করে। জেট প্রপালসন গতিপথটি ক্রমশ বৃত্তাকার করতে থাকবে যতক্ষণ পর্যন্ত না উপগ্রহটি নিখুঁত বৃত্তাকার জিওস্টেশনারি অরবিট বা ভূস্থির কক্ষপথে সুনির্দিষ্ট স্থানে যথাযথ আবর্তন বেগে প্রতিষ্ঠিত হয়। এভাবে উৎক্ষেপণোত্তর ৩ থেকে ৪ সপ্তাহ সময় ব্যয়ে চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছালে উপগ্রহটি তার সৌর প্যানেল এবং অ্যান্টেনাগুলো সম্পূর্ণভাবে মেলে দেবে। কক্ষপথের শূন্যতায় সৌর ও মহাজাগতিক বিকিরণে প্রাবল্য, চরম শীত-তাপ অবস্থার মুখোমুখি হবে এ স্যাটেলাইটটি। -১৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াস থেকে + ১৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত তাপমাত্রার ওঠানামা হবে। এমন বিরূপ পরিবেশের মাঝেও উচ্চ প্রযুক্তিতে নির্মিত এই উপগ্রহটি ১৫ বছরের বেশি সময় থাকবে। এমনকি ১৮ বছর পর্যন্ত কার্যকর হতে পারে। এর আওতা এলাকা বাংলাদেশ ছাড়াও ভারত, মিয়ানমার, আফগানিস্তান, পাকিস্তান, ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইন, মধ্য-এশিয়ার বিস্তৃত অঞ্চলে এর পরিসেবা পৌঁছাতে পারবে। এ প্রকল্পের ব্যয় দাঁড়াচ্ছে প্রায় ২৭৬৫ কোটি টাকা।

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটটির অবস্থান ইন্দোনেশিয়ার পূর্ব প্রান্তের ভূপৃষ্ঠের ওপরে, ভূপৃষ্ঠ থেকে ৩৫ হাজার ৮০০ কিলোমিটার উচ্চতায় ১১৯ দশমিক ১ পূর্ব দ্রাঘিমায় ক্লার্ক অরবিটে অবস্থান করবে। উপগ্রহটি সুস্থির বিন্দুতে পৌঁছে দীর্ঘ কার্যকালে চন্দ্র, সূর্য ও পৃথিবীর আকর্ষণজনিত জটিলতার ফলে অবস্থানে কিছু বিচ্যুতির মুখোমুখি হবে। সেটি সংশোধনের জন্য সেখানে জেট প্রপালসনের কার্যক্রম আছে। পৃথিবীর ছায়ার কারণে সৌর প্যানেলগুলো প্রতিদিন একটি সময় সূর্যের আলো পাবে না। সেই সময়ের জন্য রিচার্জেবল ব্যাটারির ব্যবস্থাও উপগ্রহটিতে আছে। স্পেস এক্সের তিনটা নিয়ন্ত্রণ কক্ষের মাধ্যমে তার গতি নিয়ন্ত্রণ করে সুস্থির অবস্থা প্রতিষ্ঠা করবে। তারপরই এর নিয়ন্ত্রণ আমাদের হাতে চলে আসবে। আজকের দিনে যখন এ অঞ্চলে টিভি সম্প্রচারে নতুন ব্যবস্থার প্রচলন হচ্ছে এবং ব্রডব্যান্ড ব্যবস্থার বিরাট উন্নয়ন ও ব্যাপ্তি হতে যাচ্ছে, তখন এ উপগ্রহের ভূমিকাটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এমনকি টেলিভিশন কেন্দ্রগুলো এই উপগ্রহের মাধ্যমে পরস্পরের সঙ্গে প্রোগ্রাম আদান-প্রদান করতে পারবে।

ক্লার্ক অরবিট হচ্ছে ভূস্থির উপগ্রহের কক্ষপথ। এটি বিখ্যাত কল্পবিজ্ঞান লেখক ও পদার্থবিজ্ঞানী আর্থার. সি ক্লার্কের নামানুসারে হয়েছে। যোগাযোগ উপগ্রহ বা উপগ্রহের যোগাযোগ ব্যবস্থার ধারণা এসেছে ১৯৪৫ সালে তার এক লেখা থেকে। একটি বিজ্ঞান সাময়িকীতে লেখাটি প্রকাশিত হয়েছিল ‘এক্সট্রা-টেরিস্ট্রিয়াল রিলে’ শিরোনামে। আমরা জানি, পৃথিবী নিজ অক্ষে অর্থাৎ পৃথিবী উত্তর-দক্ষিণ মেরুদ্বয় বরাবর কল্পিত অক্ষকে কেন্দ্র করে প্রতিনিয়ত ঘুরছে, যার ফলেই দিনরাত হচ্ছে, নক্ষত্রগুলোর উদয়-অস্ত হচ্ছে। এ ঘূর্ণনের ফলে পৃথিবীর বিষুবীয় পৃষ্ঠদেশ প্রতি সেকেন্ডে ৪৬৫ মিটার সরে যাচ্ছে। এখন পৃথিবীর ঘূর্ণনের সমান তালে যদি একটি কৃত্রিম উপগ্রহ বিষুব রেখার বরাবর ওপরে ঊর্ধ্বাকাশে নির্দিষ্ট উচ্চতায় (প্রায় ৩৫৮০০ কিলোমিটার উচ্চতায়) ওই একই কৌণিক দ্রুতিতে সর্বদা ঘুরতে থাকে, তখন তাকে পৃথিবীর বুক থেকে স্থির বলে মনে হবে। এ ক্ষেত্রে পৃথিবীর অক্ষের সাপেক্ষে তার কৌণিক আবর্তন মহাকাশের স্যাটেলাইটের কৌণিক আবর্তন একই থাকবে। ফলে স্যাটেলাইটটি ভূস্থির স্যাটেলাইটে পরিণত হবে এবং ওই কক্ষপথকে ক্লার্ক অরবিট নামে অভিহিত করা হয়। এজন্য উপগ্রহটির বেগ হতে হবে পশ্চিম থেকে পূর্ব দিকে প্রতি সেকেন্ডে প্রায় ৩.১ কিলোমিটর।

আমাদের ভূস্থির উপগ্রহের অবস্থান ৯০ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমাংশের যত কাছাকাছি হবে, ততটাই আমাদের সুবিধাজনক হবে এবং যথাসময়ে প্রকল্পটি হলে ৭৪ ডিগ্রি দ্রাঘিমাংশটি পেতাম। যে অবস্থানটি থেকে কার্য সম্পাদন অনেক সুবিধাজনক হতো। আর এতে কোনো অর্থ ব্যয় হতো না। বর্তমানের অবস্থান বা সেগমেন্টটি একটি রুশ প্রতিষ্ঠান থেকে ১৫ বছরের জন্য ২২৯ কোটি টাকার বিনিময়ে লিজ নিতে হয়েছে। বর্তমানে আইটিইউ আমাদেরকে ১১৯ দশমিক ১ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমাংশের চাইতে নিকটতর কোনো অবস্থান বরাদ্দ করতে পারেনি। স্যাটেলাইট প্রকল্প ১৯৯৮-৯৯ সালে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে যখন নেওয়া হয়েছিল, তাতে যদি ২০০১ সালে বাধা না পড়ত তাতে অধিকতর সুবিধাজনক অবস্থান পেতাম। বর্তমানে অবস্থানটি তির্যক এবং আমাদের মূল পরিসেবা গ্রহণকারী এলাকা থেকে একটু দূরে হওয়ায় উত্তম অবস্থান নয়। তবে এটাকে বর্তমানে সম্ভাব্য ‘সর্বোত্তম’ বলা হবে অবশ্যই।

মহাকাশে অভিযানের ৫৭ বছর

rocket launchesআসিফ : ১৯৬১ সালের ১২ এপ্রিল, ভোস্তক-১-এ চড়ে ইউরি গ্যাগারিন মহাশূন্য অভিযানে গিয়ে পরিণত হয়েছেন প্রথম নভোচারী। মানুষের মহাকাশ অভিযাত্রার ৫৭ বছর পূর্তি হতে যাচ্ছে। কত না সংগ্রাম আর ত্যাগের ছিল মানুষের এই অভিযাত্রার ইতিহাস! মহাশূন্যে মানুষের এই যাত্রাপথের দিকে আমরা ফিরে তাকাতে চেয়েছি।

মানুষের নভোযানে করে মহাশূন্য অভিযানের ৫৭ বছর পার হতে চলল। মহাকাশযান ভোস্তক-১-এ চড়ে ইউরি গ্যাগারিন (৯ মার্চ ১৯৩৪-২৭ মার্চ ১৯৬৮) এই কাজটি করেছিলেন। মানব ইতিহাসে তিনি পরিণত হয়েছিলেন প্রথম নভোচারী। এই সম্মানে ১৯৬৮ সালে নিকটস্থ শহরের নাম পরিবর্তন করে তার নামে রাখা হয়। সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের লাখ লাখ মানুষের মতো, গ্যাগারিন পরিবারও দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের নাৎসি দখলদারিত্বের ভুক্তভোগী। সোভিয়েতরা তাদের এই নায়ককে সহজে হারাতে চাননি; তাই পেশাগত জীবনে তাকে দুর্ঘটনা সম্পর্কিত কাজ থেকে দূরে রাখার চেষ্টা করেছেন। তারপরও তাকে রক্ষা করতে পারেননি। বিমান দুর্ঘটনায় অল্প বয়সে তার জীবনের সমাপ্তি ঘটে।

৪০ থেকে ৭০-এর দশক পর্যন্ত মহাকাশ অভিযানের মূল শক্তি ছিল মূলত মার্কিন ও রুশ পরাশক্তি দ্বয়ের প্রতিযোগিতা। এ ধরনের অস্থির প্রতিযোগিতার কারণে স্বাভাবিকতায় যে অগ্রগতি হওয়ার কথা ছিল তার চেয়ে অনেক বেশি হয়েছিল। কিন্তু এসব অর্জন মানব জাতির অর্জন বলে স্বীকৃত হয়নি। প্রত্যেকে নিজেদের জয় বলে পতাকা উড়িয়েছে। মহাকাশ অভিযান তো মূলত মানব জাতির সম্প্রসারণ। এখানে জয়-পরাজয়ের স্থান নেই। আমরা যদি এর প্রারম্ভের দিকে যাই,দেখব তা কতটা সংগ্রামের, কতটা ত্যাগের এই অভিযান।nikolai kibalcic

বর্তমানে মহাকাশযানগুলো সৌরজগতের দূর-দূরান্তে ছড়িয়ে পড়েছে। অথচ রকেটের প্রথম নকশার পরিকল্পনা করেন ফাঁসিতে ঝোলার মাসখানেক আগে রুশ বিপ্লবী নিকোলাই কিবালচিচ, দ্বিতীয় আলেক্সান্দারকে হত্যাচেষ্টায় দায়ী করে যাকে ফাঁসি দেওয়া হয়। আর একেবারে বৈজ্ঞানিক ভিত্তির ওপর দাঁড়িয়ে, ১৮৯৫ সালে প্রথম যে বইয়ে মহাশূন্য ভ্রমণের কথা উল্লেখ করা হয় তার রূপকার ছিলেন ৎসিওলকোভস্কি; উল্লেখ্য, তখন কোনো উড়োজাহাজও ছিল না। ১৯০৩ সালে ৎসিওলকোভস্কি মহাশূন্যে রকেট মহাকাশযানকে কীভাবে নিয়ে যাবে তার ওপর মৌলিক রচনা প্রকাশ করেন, গাণিতিক সূত্র দেন। দারিদ্র্য আর বিরুদ্ধ প্রেক্ষাপটে দাঁড়িয়ে তিনি এগুলোকে বাস্তবে রূপ দিতে পারেননি। তবে পরবর্তীকালে তা বাস্তবে রূপ দেন মার্কিন বিজ্ঞানী রবার্ট গডার্ড। একই রকম কষ্ট আর লাঞ্ছনা নিয়ে তিনি তার কাজ করে যান। ১৯২৬ সালের ২৬ মার্চ তার তৈরি প্রথম রকেটটি মাত্র চার ফুট উপরে ওঠে। সেই প্রচেষ্টার ধারাবাহিকতায় রুশরা তাদের তৈরি রকেট ৬০ মাইল উঁচুতে ওঠাতে সক্ষম হয়। অবশেষে ১৯৫৭ সালের ৪ অক্টোবর সোভিয়েত বিজ্ঞানীরা এক হাজার ৪৬৩ পাউন্ড ওজনের ২২.৮ ইঞ্চি ব্যাসবিশিষ্ট রকেটের সাহায্যে কৃত্রিম উপগ্রহ স্পুৎনিক-১ পৃথিবীর কক্ষে স্থাপনে সক্ষম হন।

tsiolkovskyএরপর ১৯৫৭ সালের ৩ নভেম্বর লাইকা নামের একটি কুকুর মহাকাশের উদ্দেশে যাত্রা করে। কোনো জীবের পক্ষে মহাকাশে গিয়ে বেঁচে থাকা সম্ভব কি-না, তা যাচাই করার জন্যই মূলত লাইকাকে মহাকাশে পাঠানো হয়েছিল। মহাকাশ গবেষণার জন্য ভালো কোনো জাতের কুকুরের বদলে বেওয়ারিশ কুকুরকে প্রশিক্ষণ দেওয়ার নীতি অনুসরণ করছিলেন। কেননা রাস্তায় বেওয়ারিশ হিসেবে টিকে থাকতে গেলে বেঁচে থাকার ক্ষমতা অপেক্ষাকৃত বেশি এবং চাহিদা থাকতে হয় কম।

কিন্তু বানর রেখে মহাকাশে কুকুর কেন নির্বাচন করা হলো? তার ওপর বানর মানব প্রজাতির কাছের একটি প্রাণী। তাকে রকেটে চড়িয়ে মহাশূন্যে পাঠানোর চেষ্টা করেও তা বারবার ব্যর্থ হয়েছে। হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা গেছে। মহাশূন্যে কুকুর পাঠানোর পেছনে অবশ্য আরও একটি কারণ ছিল। রুশ স্নায়ু বিজ্ঞানী আইভ্যান পাভলভের কুকুর নিয়ে বিস্তারিত গবেষণা সেরে ফেলেছিলেন। তিনি কুকুরের হজমশক্তি থেকে শুরু করে তাদের স্নায়ুতন্ত্রের ক্রিয়াকর্ম সম্পর্কে বিস্তর গবেষণা করেছিলেন। এর জন্য নোবেল পুরস্কারও পেয়েছিলেন। ফলে কুকুরের শারীরতত্ত্ব সম্পর্কে বিজ্ঞানীরা আগে থেকেই অনেক কিছু জানতেন।

উল্লেখ্য, কোপার্নিকাস, টাইকো ব্রাহে, জোহানস কেপলার, জিওর্দানো ব্রুনো, গ্যালিলিও গ্যালিলি হয়ে প্রথম তাত্ত্বিকভাবে কৃত্রিম উপগ্রহের চিন্তা করেছিলেন আইজ্যাক নিউটন। এসব ইতিহাস পর্যালোচনা করতে গেলে দেখা যাবে বেশিরভাগ আবিস্কার, প্রাযুক্তিক উদ্ভাবনের সঙ্গে মানুষের অকল্পনীয় কষ্ট আর দারিদ্র্য নিষ্পেষণ জড়িয়ে আছে। অথচ পরবর্তীকালে দেখা যায়, এসব আবিস্কার আর উদ্ভাবনের বেশির ভাগের ব্যবহার মানুষের সঙ্গে মানুষের যুদ্ধের কাজে ব্যবহার করা হয়। বিজ্ঞান প্রযুক্তির মোড়কে ভোগের বস্তু হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই প্রযুক্তির ব্যবহারে আমরা নিজেদের ভারসাম্য রাখতে ব্যর্থ হচ্ছি। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সঙ্গে শিল্পকলার সমন্বয় ঘটাতে না পারলে আমাদের এ অবস্থা আরও খারাপ দিকে যাবে। অথচ বিখ্যাত প্রত্নতাত্ত্বিক ও প্রতিভাধর বিজ্ঞান ঔপন্যাসিক ইভান ইয়েফ্রেমভ দুই হাজার বছর পরের পৃথিবীকে নিয়ে লেখা বিজ্ঞান উপন্যাস ‘অ্যান্ড্রোমিডা নীহারিকা’-এর পাঠকরা স্পুটনিক-১ উৎক্ষেপণের এই দিনটিকে মহাবৃত্তীয় যুগের সূচনা হিসেবে চিহ্নিত করে লেখককে অভিনন্দন পাঠিয়েছিলেন। এ উপন্যাসটি লেখা হয়েছিল ১৯৫৬ সালে অর্থাৎ ভূ-উপগ্রহ স্থাপনের এক বছর আগে।

yuri gagarin 3কৈশোরে ইউরি গ্যাগারিন মহাকাশ এবং গ্রহ সম্পর্কে আগ্রহী হয়ে ওঠেন এবং তার মহাকাশ যাত্রা নিয়ে স্বপ্ন দেখা শুরু করেন। ১৯৬১ সালের ১২ এপ্রিল ভোস্তক-১-এ চড়ে সেই স্বপ্নকে সার্থক করেন। তার পথ ধরে বহু নর-নারী মহাকাশে পাড়ি জমিয়েছেন। আমরা পদার্পণ করেছি মহাকাশযুগে। মহাকাশে বসতির প্রাথমিক পদক্ষেপ হিসেবে স্পেস স্টেশন গড়ে তোলার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ রকম একটি স্পেস স্টেশন থেকে সিরীয় মহাশূন্য অভিযাত্রী তার অনুভূতিকে ব্যক্ত করেছিলেন, ‘যখন আপনি মহাশূন্য থেকে সমগ্র জগৎ বা পৃথিবীকে দেখবেন সেখানে আপনি আমাদের পাবেন না, পাবেন না তাদেরকেও, পাবেন না কোনো রাজনীতি।’ চলুন সর্বশেষ চাঁদে পদার্পণকারী ইউজেন এ সারনানের কথা মাথায় রেখে বলি- ‘আমরা হলাম পৃথিবীবাসী। জাতিগত বিদ্বেষ ও ভেদাভেদ ভুলে মহাকাশে ছড়িয়ে পড়ছি।’ স্বপ্ন হচ্ছে গ্রহ-গ্রহান্তরে বসতি গড়া। সেই বিশ্বাসকে লালন করার আহ্বান জানাচ্ছি নব প্রজন্মের কাছে।

বিভাগ:প্রযুক্তি

কাঁচ দিয়ে গড়া মসজিদ

glass mosque

সিভিল এভিয়েশনের নজরদারি না থাকায় দুর্ঘটনা

us-bangla dashআজাদ সুলায়মান ॥ দেশের ফ্লাইং ক্লাবগুলোর অব্যবস্থা ও স্বেচ্ছাচারিতার খেসারত দিচ্ছেন প্রশিক্ষণার্থীরা। সিভিল এভিয়েশনের সর্বক্ষণিক নজরদারি না থাকা ও সেফটি ইস্যুতে শিথিলতার দরুন একের পর এক দুর্ঘটনা ঘটছে বলে অভিযোগ করছেন ভুক্তভোগী পরিবারগুলো। তাদের মতে-আইকাও এবং সিভিল এভিয়েশনের নিয়ম মেনে চলছেনা এসব ফ্লাইং ক্লাব। বিশেষ করে নারী পাইলটদের প্রশিক্ষণের বিষয়ে যতটুকু সতর্কতামূূলক পদক্ষেপ নেয়া বাধ্যতামূলক, সেটা মানা হয়নি বলেই নারী পাইলটদের হাতেই বেশি দুর্ঘটনা ঘটছে। স্বাধীনতার পর এ পর্যন্ত বিমান দুর্ঘটনায় সবচেয়ে বেশি প্রাণ দিয়েছেন নারী পাইলটরাই। ক্যাপ্টেন রোখসানা, জাকিয়া সুলতানা চমন, ডলি, ফারিয়া লারা, তামান্না ও পৃথুলা। অদক্ষ প্রশিক্ষকের সঙ্গে ত্রুটিপূর্ণ উড়োজাহাজে প্রশিক্ষণে বাধ্য করায় অধিকাংশ নারী পাইলটকে প্রাণ দিতে হয়েছে।

সিভিল এভিয়েশনের পরিসংখ্যানে দেখা যায়, জেনারেল এভিয়েশন সেক্টরে এ যাবত যত দুর্ঘটনা ঘটেছে- সবকটিরই তদন্তে ফ্লাইং ক্লাবগুলোর অবহেলা ও সঠিক পরিকল্পনাকে দায়ী করা হয়েছে। সর্বশেষ রাজশাহীতে যে দুর্ঘটনায় প্রশিক্ষণার্থী তামান্না ও প্রশিক্ষক শাহেদ কামাল নিহত হন- সেটার তদন্তেও ফ্লাইং ক্লাবের সঠিক পরিকল্পনা, যান্ত্রিক ত্রুটি ও ব্যবস্থাপনার সমন্বয়হীনতাকেই দায়ী করা হয়েছে। ওই দুর্ঘটনার তদন্ত সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানায়, ভর দুপুরে যে সময়টাতে নিহতদ্বয়ের বিশ্রামে থাকার কথা সে সময়ে তারা ফ্লাইং করতে যান। প্রশিক্ষক শাহেদ কামাল একজন দক্ষ পাইলট হলেও তিনি মানসিকভাবে কিছুটা চাপের মুখে ছিলেন। সে সময় তার বিরুদ্ধে একটি অভিযোগের তদন্ত চলায় তিনি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত অবস্থায় ছিলেন। তারপরও তাকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে ওই ফ্লাইটে পাঠানো হয়। তদন্তকারীরা জানতে পারেন, ওই দুর্ঘটনার কদিন আগেই তিনি ইজি ফ্লাই নামের একটি কার্গো কোম্পানিতে যোগ দেন। এ অবস্থায় মাত্র চার দিনের জন্য তামান্নাসহ আরও ১০ জন প্রশিক্ষণার্থীকে ‘সলো ট্রেনিং’ করানোর জন্য তিনি রাজশাহী যান। মাত্র চারদিনেই এত সংখ্যক প্রশিক্ষণার্থীকে সলো (এককভাবে ফ্লাই করানো) করানোর কঠিন দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তিনি বেশ অবসাদগ্রস্ত ছিলেন। যে কারণে তাড়াহুড়ো করতে গিয়ে তিনি সেদিন দুর্ঘটনার মুখে পড়েন। এ বিষয়ে সিভিল এভিয়েশন সূত্র জানায়, সে সময় শাহেদের বিরুদ্ধে একটি ঘটনার তদন্ত চলছিল। এমনিতে তিনি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত ছিলেন। এমন অবস্থায় তাকে রাজশাহীতে গিয়ে ১০ জনকে সলো করানোর মতো কঠিন দায়িত্ব চাপিয়ে দেয়া ঠিক হয়নি।

এ প্রসঙ্গে যমুনা নদীতে পড়ে প্রাণ হারানো অপর পাইলট কামরুল ইসলাম সম্পর্কেও সিভিল এভিয়েশনের এক দায়িত্বশীল কর্মকর্তা বলেন,‘তার কোন ইমার্জেন্সি ল্যান্ডিং প্র্যাকটিস ছিলনা। কারণ সে সময়ে বাংলাদেশ ফ্লাইং একাডেমিতে ফুলটাইম ইন্সট্রাক্টর ছিলনা। এতে সর্বক্ষণিক ইমার্জেন্সি প্র্যাকটিস করানো হত না। কামরুল নিজেও এ প্রশিক্ষণ থেকে বঞ্চিত হন। তার যদি এ ট্রেনিং থাকত তাহলে- তিনি বেশ নিরাপদেই যমুনার চরে ইমার্জেন্সি ল্যান্ডিং করতে পারতেন। ওই ঘটনায় তিনি প্রাণ হারালেও তার সহযোগী পাইলট শামসুদ্দিন ভাগ্যজোরে প্রাণে রক্ষা পান । এখন তিনি একটি বেসরকারী এয়ারলাইন্সে কর্মরত। এ বিষয়ে একজন পাইলট জানান, কোন ধরনের ইন্সট্রাক্টর ছাড়া দুজন পাইলটকে এ ধরনের প্রশিক্ষণ উড়োজাহাজে ঢাকা থেকে রাজশাহী পাঠানো আদৌ ঠিক হয়নি। যদিও দুজনেরই পিপিএল ( প্রাইভেট পাইলট লাইসেন্স) ছিল, তবুও তাদের কাছে এ ধরনের ফ্লাইং ঝুঁকিপূর্ণই ছিল । সে সময়েও বাংলাদেশ ফ্লাইং একাডেমিতে কোন ফুলটাইম ইন্সট্রাক্টর ছিলনা।

এ সব দুর্ঘটনার তদন্ত করতে গিয়ে বাংলাদেশ ফ্লাইং ক্লাব একাডেমির বেশ কিছু অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনার চিত্র ফুটে ওঠে। তদন্তকারীরা অবাক হয়েছেন- দেশের প্রধান ও প্রথম এই একাডেমির প্রধান চীফ ইঞ্জিনিয়ার রুমির কোন এ্যারোনটিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের কোন ডিগ্রী নেই। উপরন্তু মাত্র অষ্টম শ্রেণী পাস এই চীফ ইঞ্জিনিয়ারের দায়িত্ব পালন করছেন মাত্র একটি ডিপ্লোমা সনদ দিয়ে। দীর্ঘদিন ধরে এখানে কাজ করতে করতে সনাতনী কায়দায় কিছুটা অভিজ্ঞতা অর্জনই তার মূল যোগ্যতা। এহেন যোগ্যতাসম্পন্ন ব্যক্তির ওপরই ছেড়ে দেয়া হয়েছে ফ্লাইং ক্লাবের এতগুলো প্রশিক্ষণ উড়োজাহাজের মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষণের মতো গুরুদায়িত্ব। এটা তদন্তকারীদের কাছেও অবিশ্বাস্য ঠেকেছে।

সিভিল এভিয়েশন জানায়, অন্যান্য ফ্লাইং ক্লাবগুলোর অবস্থা আরও শোচনীয় যেখানে, আইকাও ও সিভিল এভিয়েশনের নিয়মনীতি ও শর্তাদি পদে পদে লঙ্ঘন হচ্ছে। সম্প্রতি সিভিল এভিয়েশনের একটি টিম পরিদর্শনের সময় দেখতে পায় গ্যালাক্সি ফ্লাইং ক্লাব নামের একটি প্রতিষ্ঠানে গত কয়েক মাস ধরে কোন প্রশিক্ষকই নেই। প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী নজরুলের স্বেচ্ছাচারিতা, নানা অরাজকতা ও অনিয়মের প্রতিবাদে পর পর ইস্তফা দেন চীফ অব ইন্সট্রাক্টটর (সিজিআই), চীফ ফ্লাইং ইন্সট্রাক্টর (সিএফআই) ও হেড অফ ট্রেনিং (এইচটি)। আজও এ সব পদ শূন্য রেখেই একাডেমির কাজকর্ম স্বাভাবিকভাবে চালানো হচ্ছে। অথচ আইকাও এবং সিভিল এভিয়েশনের রুলস হচ্ছে এ ধরনের পদ শূন্য রেখে কিছুতেই উড্ডয়ন প্রশিক্ষণের কাজ চালানো যায়না। এটা বিপজ্জনক। এতগুলো গুরুত্বপূর্ণ পদ খালি রেখে প্রশিক্ষণ দেয়াটা প্রশিক্ষকের জন্যও নিরাপদ নয় বলে জানিয়েছেন এভিয়েশন বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে-প্রতিষ্ঠানটির মালিকপক্ষ যেভাবে আলু-পটলের ব্যবসার মতো গায়ের জোরে ফ্লাইং ব্যবসা করছেন- তাতে খেসারত দিতে হচ্ছে যমুনা নদীতে পড়ে দুর্ঘটনায় প্রাণ হারানো কামরুল ইসলামের মতো পাইলটকে।

এ প্রসঙ্গে এভিয়েশন বিশেষজ্ঞ আশীষ রায় চৌধুরী জনকণ্ঠকে বলেন, দেশের ফ্লাইং ক্লাবগুলোকে প্রশিক্ষণের বিষয়ে আরও সতর্ক ও পেশাদারি হতে হবে। এমনও অভিযোগ পাওয়া গেছে-প্রশিক্ষণ বিমানে ফ্লাইং করার সময়ে ককপিটে বসে প্রশিক্ষক ও প্রশিক্ষণার্থী দুজনেই সেলফি তোলার মতো কৌতূহলী কাজেও ব্যস্ত থেকেছে। যেখানে তাদের এক মুহূর্তের অন্যমনস্কতায় ভয়াবহ দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে সেখানে তাদেরকে ককপিটে বসে মোবাইল ফোনে সেলফি তোলার মতো ছেলেমিপনা কতোটা ভয়ঙ্কর তা যদি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ অনুধাবন করতে না পারে তাহলে এর চেয়ে আর দুর্ভাগ্য কি হতে পারে।

তিনি সিভিল এভিয়েশনকে এ সেক্টরে আরও বেশি মনোযোগী ও তদারকি বাড়ানোর পক্ষে অভিমত প্রকাশ করেন। আন্তর্জাতিক মান বজায় রাখতে হলে ফ্লাইং ক্লাবগুলোকে তাদের মতো করে পলিসি তৈরি করলে চলবে না। সরকারী বেসরকারী সব ধরনের ফ্লাইং ক্লাবকেই আইকাও ও সিভিল এভিয়েশনের সব শর্ত ও নিয়ম মেনে চলতে হবে।

পৃথিবীতে আছড়ে পড়ছে তিয়াংগং-১

tiangong falling

বিভাগ:প্রযুক্তি

ঐতিহাসিক কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র

 

kalurghat radio station 1a.jpg

kalurghat radio station 1b