প্রথম পাতা > খাদ্য, বিজ্ঞান, স্বাস্থ্য > মাইক্রোওভেনে যে সব খাবার পুনরায় গরম করা ঠিক নয়

মাইক্রোওভেনে যে সব খাবার পুনরায় গরম করা ঠিক নয়

microwave_2আফরিনা ফেরদৌস : মাইক্রোওভেনের সঙ্গে আমরা কমবেশি সবাই পরিচিত। আমাদের আধুনিক রান্নাঘরকে আরো আধুনিক করতে ইলেকট্রিক মেশিনারিজের মধ্যে অন্যতম এই পণ্যটি আমাদের নিত্যদিনের যাত্রাকে আরো সহজ করে দিয়েছে।

খুব কম সময়ে খাবার গরম করার জন্য মাইক্রোওভেন বেশি ব্যবহৃত। অনেকে তো ওটমিল, হট চকলেট অথবা পপকর্ণ তৈরির কথা ভাবতেই পারেন না মাইক্রোওভেন ছাড়া।

অতি পরিচিতির কারণে প্রায় সবাই এর ব্যবহার সম্পর্কে অবগত। ব্যবহারবিধি সম্পর্কিত একটি বইয়ে অনেক কিছু লেখা থাকে এই মেশিনটির ব্যবহার সম্পর্কে। সেটি আমরা অনেকেই ভালোভাবে পড়ে দেখি না। আর সেই কারণেই অনেক ব্যবহারজনীত ভুল রয়েছে আমাদের।

সাধারণত অ্যালুমিনিয়ামের ফয়েল পেপার, মেটাল অথবা প্লাস্টিক কখনই মাইক্রোওভেনে ব্যবহার করতে হয় না। কারণ এগুলোর মাধ্যমে দুর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা থাকে।

কিন্তু আপনি জানেন কি এমন অনেক খাবার আছে যা কখনই মাইক্রোওভেনে দিয়ে পুনরায় গরম করতে হয় না। আর তা করলে ফুড পয়জন হতে পারে। অনেক সময় কারসিনোজেনিক টক্সিনের কারণে মাইক্রোওভেন বিস্ফোরণ হতে পারে।

আসুন জেনে নেওয়া যাক কোন কোন খাবারগুলো মাইক্রোওভেনে দিয়ে পুনরায় গরম করতে হয় না।

পূর্ণ সিদ্ধ ডিম

পূর্ণ সিদ্ধ ডিম বা হার্ড বয়েলড ডিম একবার ওভেনে সিদ্ধ করার পর তা পুনরায় গরম করার জন্য আবার ওভেনে দেওয়া ঠিক নয়। ডিম যখন মাইক্রোওভেনে দিয়ে সিদ্ধ করা হয় তখন ডিমের ভেতরের ময়েশ্চার একে পুরোপুরি বাষ্পহীন করে দেয় এবং মিনিয়েচার প্রেসার কুকারে পরিণত হয়। তবে এটি হয়তো আপনার মাইক্রোওভেনের ভেতরে ব্লাস্ট না হয়ে আপনার হাতে বা মুখে ব্লাস্ট হতে পারে। তাই পুনরায় মাইক্রোওভেনে ডিম গরম করতে চাইলে তা ছোট ছোট টুকরা করে নিন, তারপর গরম করুন।

দুধ

দুধ কখনই মাইক্রোওভেনে দিয়ে পুনরায় গরম করা উচিত নয়। এমনিতেই ডাক্তাররা বলেন দুধ একবারই গরম করে খেয়ে ফেলা ভালো। এছাড়া অনেক মায়েরা বাচ্চাদের খেয়ে রাখা অবশিষ্ট দুধ রেখে দেন বাচ্চাকে পরে খাওয়াবেন বলে। এক্ষেত্রেও দুধ পরে গরম করা উচিত নয়। কারণ মাইক্রোওভেন খাবারের সঙ্গে সঙ্গে খাবারের পাত্রও গরম করে। এতে করে দুধের বোতলের গরম তাপ আপনার শিশুর ত্বকের ক্ষতির কারণ হয়ে দাড়াতে পারে।

প্রক্রিয়াজাত মাংস

প্রক্রিয়াজাত মাংস পুনরায় মাইক্রোওভেনে গরম করা উচিত নয়। বরং তা আপনার স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হয়ে উঠতে পারে। প্রক্রিয়াজাত মাংস পুনরায় গরম করলে তা কোলেস্টেরল অক্সিডেশন পণ্যে পরিণত হয়। যা আপনার শরীরের কোলেস্টেরলকে বাড়িয়ে তোলে। এছাড়া কোলেস্টেরল অক্সিডেশন সরাসরি করনারী হার্ট সমস্যার সঙ্গে যুক্ত। তাই আপনি যখন প্রক্রিয়াজাত করা মাংস পুনরায় গরম করে খান তখন তার একটি খারাপ প্রভাব আপনার হার্টের ওপরও পড়তে থাকে।

ভাত

যুক্তরাষ্ট্রর ফুড স্ট্যান্ডার্ড এজেন্সির মতে, ভাত মাইক্রোওভেনে গরম করলে তা বিষে পরিণত হয় অর্থাৎ তা ফুড পয়জন তৈরি করে। ভাত একবার রান্না করার পর এর ভেতরের ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া মারা যায়। আবার যখন এই ভাতকে মাইক্রোওভেনে দিয়ে পুনরায় গরম করা হয় তা এই ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়াগুলোকে পুনরায় জীবিত হতে সাহায্য করে। যা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য খুবই খারাপ। এছাড়া ভাত পুনরায় মাইক্রোওভেনে গরম করে তারপর ঘরের স্বাভাবিক তাপমাত্রায় রেখে দিয়ে খেলে তা থেকে ডায়রিয়া এবং বমি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

সবুজ পাতা জাতীয় সবজি

আমরা অনেক ধরনের সবজি শুধু খেয়ে থাকি। বিশেষ করে পাতা জাতীয় সবজি যেমন ধনে পাতা, লেটুস পাতা, লাল শাক, পুই শাক ইত্যাদি। এই সবুজ পাতা জাতীয় সবজিগুলো খাওয়ার পূর্বে কখনই মাইক্রোওভেনে গরম করা উচিত নয়। কারণ এই সবজিগুলো পুনরায় মাইক্রোওভেনে গরম করলে তা টক্সিনে পরিণত হয়। যা আমাদের শরীরের জন্য বেশ ক্ষতিকর।

তথ্যসূত্র: রিডার্স ডাইজেস্ট

Advertisements
  1. কোন মন্তব্য নেই এখনও
  1. No trackbacks yet.

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: