প্রথম পাতা > আন্তর্জাতিক, রাজনীতি > জটিল পরিস্থিতিতে সিরিয়া !

জটিল পরিস্থিতিতে সিরিয়া !

রুশ ইঙ্গিত: ‘মার্কিন একগুঁয়ে নীতি যুদ্ধ ডেকে আনবে’

রাশিয়া পরিষ্কারভাবে আমেরিকাকে বার্তা দিয়েছে যে, ওয়াশিংটনের নীতি হচ্ছে ‘যুদ্ধংদেহী’ এবং এ নীতি যুদ্ধ ডেকে আনতে পারে। এক্সিকিউটিভ ইন্টেলিজেন্স রিভিউ পত্রিকার সাংবাদিক ও মার্কিন রাজনৈতিক বিশ্লেষক বিল জোন্স ইরানের প্রেস টিভিকে দেয়া সাক্ষাৎকারে এ কথা বলেছেন।

তিনি বলেন, ওয়াশিংটনের কাছ থেকে এখন যেসব একগুঁয়েমি ও যুদ্ধংদেহী কথাবার্তা আসছে, হোয়াইট হাউজ ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় যা বলছে এবং রাশিয়ার বিরুদ্ধে আরোপ করা নিষেধাজ্ঞা ও সিরিয়া ইস্যুতে জন কেরি এবং সের্গেই ল্যাভরভের মধ্যে সই করা চুক্তি ভেঙে যাওয়াএসবই পরিস্থিতিকে পাল্টে দিয়েছে। এর পাশাপাশি ন্যাটোর পক্ষ থেকে রাশিয়াকে হুমকি দেয়া ও রুশ সীমান্তে ন্যাটোর সেনা মোতায়েন সবকিছুই পরিস্থিতিকে বিপজ্জনক করে তুলেছে।

আমেরিকার সঙ্গে রাশিয়ার পরমাণু জ্বালানি সহযোগিতা চুক্তি বাতিল করার পর বিল জোন্স এসব কথা বলেছেন। ইউক্রেন ইস্যুতে রাশিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার প্রতিবাদে মস্কো এ ব্যবস্থা নিয়েছে। রাশিয়া ও আমেরিকার ভেতরের বর্তমান পরিস্থিতিকে বিল জোন্স অশুভ বলে মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, এমন অবস্থা দেখা যায় যুদ্ধের আগে।

পার্সটুডে, ২০১৬১০০৬

এস৩০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা মোতায়েন

s-300-systemসিরিয়ার সরকারি বাহিনীর ওপর হামলাকারী বিমানকে গুলি করে নামানোর হুমকি দিয়েছে রাশিয়া। সিরিয় সেনা অবস্থানের ওপর বিমান হামলা চালানোর বিরুদ্ধে মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোটের প্রতি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে এ কথা বলেছে রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। সিরিয়ার আকাশে অপরিচিত যে কোনো কিছুকে গুলি করে নামানোর জন্য প্রস্তুত রয়েছে রাশিয়ার এস৩০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা। এস৩০০ দিয়ে ক্ষেপণাস্ত্রের পাশাপাশি যুদ্ধবিমান এবং হেলিকপ্টারকে ভূপাতিত করা সম্ভব। রুশ সেনাবাহিনীর নিরাপত্তার জন্য সিরিয়ার তারতুস বন্দর এবং হেমেইমিম ঘাঁটিতে সম্প্রতি এস৪০০ এবং এস৩০০ বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা মোতায়েন করেছে রাশিয়া।

রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জেনারেল ইগোর কোনাশেংকভ বলেছেন, “রাশিয়ান রিকন্সিলেয়েশন সেন্টারের অনেক সদস্য সিরিয়ায় ত্রাণ বিতরণ এবং যোগাযোগ রক্ষার কাছে নিয়োজিত রয়েছেন। এ অবস্থায় সিরিয়ার সরকারি যে কোনো অবস্থানের ওপর ক্ষেপণাস্ত্র বা বিমান হামলা হলে তাতে রুশ সেনাদের জীবন বিপন্ন হবে।

কথিত ‘অদৃশ্য’ জেটবিমান নিয়ে অপেশাদারসুলভ চিন্তাভাবনা করা হলে তা হতাশাব্যঞ্জক বাস্তবতার মুখে পড়বে বলেও হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন রুশ এ মুখপাত্র। তিনি আরো বলেন, সিরিয়ার নিজেরই এস২০০ এবং বিইউকে ব্যবস্থা রয়েছে। কয়েক বছরে এ দুই ধরনের বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার উন্নয়ন ঘটিয়েছে সিরিয়া।

ওয়াশিংটন সিরিয়ার সরকারি অবস্থানের ওপর বিমান হামলার কথা ভাবছে বলে পশ্চিমা সংবাদ মাধ্যমে খবর প্রকাশিত হওয়ার পর এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করল রাশিয়া।

পার্সটুডে, ২০১৬১০০৭

ভূমধ্যসাগরে রণতরী মোতায়েন করছে রাশিয়া

সিরিয়ার পরিস্থিতি জটিল আকার ধারণ করার প্রেক্ষাপটে ভূমধ্যসাগরে আবার দুটি রণতরী মোতায়েন করছে রাশিয়া। মস্কো জানিয়েছে, এরইমধ্যে দুটি বুয়ানশ্রেণির ক্ষেপণাস্ত্রবাহী রণতরী ভূমধ্যসাগরের দিকে রওয়ানা হয়েছে। সিরিয়া ইস্যুতে রাশিয়ার সঙ্গে আমেরিকা যোগাযোগ স্থগিত করার পর মস্কো এ ব্যবস্থা নিল।

কৃষ্ণসাগরে মোতায়েন রুশ নৌবহরের মুখপাত্র নিকোলাই ভসক্রেসেনস্কি দেশটির গণমাধ্যমকে আজ (বুধবার) জানান, জেলিয়নিডল ও সারপুখভ নামে দুটি রণতরী মঙ্গলবার ক্রিমিয়ার বন্দর ছেড়ে গেছে। তিনি জানান, জাহাজ দুটি কৃষ্ণসাগরের প্রণালী পার হয়েছে এবং বুধবার সন্ধ্যা নাগাদ ভূমধ্যসাগরের জলসীমায় পৌঁছানোর কথা। পরে তারা ভূমধ্যসাগরের স্থায়ী ঘাঁটিতে যোগ দেবে। এ দুটি রণতরী থেকে গত ১৯ আগস্ট সিরিয়ার উগ্র তাকফিরি সন্ত্রাসীদের ওপর ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানো হয়েছিল। পরে অবশ্য জাহাজ দুটি কৃষ্ণসাগরে ফিরে গিয়েছিল।

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ইগোর কোনাশেংকভ গতকাল জানিয়েছেন, সিরিয়ার তারতুস শহরের কাছে রুশ নৌ ঘাঁটি রক্ষার জন্য এস৩০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা মোতায়েন করা হয়েছে। এর একদিন পর ক্ষেপণাস্ত্রবাহী রণতরী মোতায়েনের খবর বের হলো। চলতি সপ্তাহের প্রথম দিকে সিরিয়া ইস্যুতে রাশিয়ার সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় চ্যানেলে যোগাযোগ বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে আমেরিকা।

পার্সটুডে, ২০১৬১০০৬

চীনরাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধ অনিবার্য বলেই ভাবছে আমেরিকা’

রাশিয়া এবং চীনের সঙ্গে যুদ্ধ প্রায় অনিবার্য বলেই ধারণা করছে মার্কিন সেনাবাহিনী। এ যুদ্ধে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা এআই এবং চৌকস অস্ত্রই হবে মার্কিন সেনাবাহিনীর প্রধান অবলম্বন। ওয়াশিংটনে এসোসিয়েশন অব দ্যা ইউএস আর্মি’র বৈঠকে মার্কিন সেনাবাহিনীর এমন ভবিষ্যত যুদ্ধের পূর্বাভাস দিয়েছেন মেজর জেনারেল উইলিয়াম হিক্স।

ভবিষ্যৎ এ যুদ্ধের তীব্রতা এবং গতি মানুষের পক্ষে চিন্তা করাও কঠিন হবে বলে উল্লেখ করেন জেনারেল হিক্স। তিনি বলেন, সুদূর ভবিষ্যতে যন্ত্র এত দ্রুত সিদ্ধান্ত নেবে যে, তার সঙ্গে তাল রাখা মানুষের পক্ষে দুষ্কর হয়ে উঠবে; ফলে মানুষ এবং যন্ত্রের মধ্যে সম্পর্কের কথা নতুন করে ভাবতে হবে। জেনারেল হিক্স বলেন, রাশিয়া এবং চীন ব্যাপকভাবে প্রচলিত সামরিক শক্তি অর্জন করছে। মার্কিন বাহিনী নজিরবিহীন সহিংসতার জন্য প্রস্তুত হচ্ছেউল্লেখ করে তিনি বলেন, কোরিয় যুদ্ধর পর এমন ব্যাপক মাত্রার সহিংসতা আর কখনই দেখা যায় নি।

এদিকে, একই বৈঠকে ভবিষ্যতে যুদ্ধ প্রায় অনিবার্য বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন সেনাবাহিনীর চিফ অব স্টাফ জেনারেল মার্ক এ মিল্লি। কোরিয় যুদ্ধের পর থেকে বিশ্বে বিমান আধিপত্য রয়েছে মার্কিন বিমান বাহিনীর। কিন্তু ভবিষ্যতে এ আধিপত্য হয়ত থাকবে না বলেও ধারণা ব্যক্ত করেন তিনি। জেনারেল হিক্স বলেন, ভবিষ্যত যুদ্ধে মার্কিন নৌবাহিনীও হয়ত কার্যকর ভূমিকা নিতে পারবে না। এটু/এডি নামে পরিচিত অঞ্চলভিত্তিক প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা গড়ে তোলায় এমনটি হতে পারে বলে মনে করেন তিনি।

পার্সটুডে, ২০১৬১০০৬

রাশিয়ার এস৩০০’র হুমকিকে পাত্তা দিচ্ছে না আমেরিকা

সিরিয়ার সরকারি সেনাদের ওপর বিমান হামলার বিষয়ে রাশিয়ার হুঁশিয়ারিকে প্রত্যাখ্যান করেছে আমেরিকা। পেন্টাগন দাবি করেছে, সিরিয়ায় দায়েশের বিরুদ্ধে হামলা চালাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকবে। পেন্টাগনের মুখপাত্র পিটার কুক বলেছেন, “গত কয়েক মাস ধরে আমরা সিরিয়ার ওপর যে অভিযান চালিয়ে আসছি তা অব্যাহত রাখব এবং আমাদের বৈমানিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য সম্ভাব্য যে ব্যবস্থা নেয়া লাগে আমরা তার সবই করব।”

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মেজর জেনারেল ইগোর কোনাশেংকভ সিরিয়ার সরকারি সেনাদের বিরুদ্ধে বিমান হামলা চালানোর বিষয়ে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করার পর পেন্টাগনের মুখপাত্র এ মন্তব্য করলেন। বৃহস্পতিবার কোনাশেংকভ বলেছেন, “সিরিয়ায় মোতায়েন এস৩০০ এবং এস৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা চালু রয়েছে। সে কারণে ওয়াশিংটনের কর্মকর্তাদেরকে পরামর্শ দেব যে, এ ধরনের পরিকল্পনা বাস্তবায়নের সম্ভাব্য পরিণতি সম্পর্কে যেন তারা সতর্ক থাকেন।”

রশিয়ার এ সেনা কর্মকর্তা সতর্ক করে আরো বলেছেন, মার্কিন বিমান হামলায় সিরিয়ার মাটিতে রুশ সেনাদের জীবন বিপদের মুখে পড়তে পারে সেজন্য মস্কো এ ব্যবস্থা নিয়েছে। পার্সটুডে ২০১৬১০০৮

সিরিয়ায় অনির্দিষ্টকাল থাকবে রুশ সেনা

রাশিয়ার জাতীয় সংসদের নিম্নকক্ষ দুমা সে দেশের সেনাদেরকে যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়ায় উগ্র সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য অনির্দিষ্টকাল মোতায়েন রাখার বিষয়ে দামেস্কের সঙ্গে করা একটি চুক্তিকে অনুমোদন দিয়েছে। শুক্রবার দুমার ৪৪৬ জন সংসদ সদস্য সর্বসম্মতভাবে এ চুক্তি অনুমোদনের পক্ষে ভোট দেন। চুক্তিটিতে অনুমোদন দেয়ার ফলে এখন রাশিয়ার সেনাদেরকে সিরিয়ার লাতাকিয়া প্রদেশের হেমেইমিম বিমানঘাঁটিতে যতদিন প্রয়োজন রাখা যাবে। বিষয়টি নিয়ে সরকারের পক্ষে দুমার সদস্যদের উদ্দেশে বক্তব্য দেন উপ প্রতিরক্ষামন্ত্রী নিকোলাই পানকভ।

সিরিয়ায় সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে রাশিয়ার বিমান হামলা শুরুর আগে ২০১৫ সালের আগস্ট মাসে প্রেসিডেন্ট বাশার আলআসাদ সরকারের অুনরোধে এ চুক্তি সই হয়। চুক্তিটি অনুমোদনের জন্য রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন চলতি ২০১৬ সালের ৯ আগস্ট দুমায় পেশ করেন। এ চুক্তি অনুসারে রাশিয়ার বিমান বাহিনী সিরিয়ার ভূখণ্ডে এয়ার গ্রুপ কমান্ডার ও সিরিয়া সরকারের সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ করবে। এ চুক্তির আওতায় রাশিয়া তার সেনাদের নিরাপত্তার প্রয়োজনে সিরিয়ার ভেতরে কিংবা সিরিয়ার বাইরে যেকোনো ধরনের গোলাবারুদ আনানেয়া করতে পারবে। এক পক্ষ আরেক পক্ষকে চুক্তি বাতিলে নোটিশ দিলে তা স্থগিত হবে। পার্সটুডে ২০১৬১০০৮

বিপজ্জনক পর্যায়ে রুশমার্কিন উত্তেজনা

রাশিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট মিখাইল গরবাচেভ বলেছেন, সিরিয়া ইস্যুতে মস্কো এবং ওয়াশিংটনের মধ্যে সৃষ্ট উত্তেজনার কারণে বিশ্ব এখন বিপজ্জনক পর্যায়ে চলে গেছে। ৮৫ বছর বয়সী গরবাচেভ রাশিয়ার বার্তা সংস্থা রিয়া নভোস্তিকে দেয়া সাক্ষাৎকারে বলেন, “আমি মনে করি বিশ্ব এখন বিপজ্জনক অবস্থার দিকে চলে গেছে। আমি বিশেষ কোনো পরিকল্পনার কথা বলব না তবে আমি বলতে চাইআমাদের থামা উচিত।” তিনি বলেন, “আমেরিকা ও রাশিয়ার মধ্যে সংলাপ শুরু করা দরকার। সংলাপ বন্ধ করা বড় ধরনের ভুল।”

ইউক্রেন ইস্যুতে রাশিয়া ও আমেরিকার মধ্যে সম্পর্ক এরইমধ্যে সর্বনিম্ন পর্যায়ে চলে গেছে। ১৯৯১ সালে শীতল যুদ্ধ অবসানের পর এত বেশি খারাপ সম্পর্ক দুদেশের মধ্যে কখনো ছিল না। ইউক্রেন ইস্যুর পাশাপাশি যোগ হয়েছে সিরিয়া সংকট। দু জায়গায়ই আমেরিকা সক্রিয়ভাবে রাশিয়ার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। পাশাপাশি সিরিয়ার সন্ত্রাসীদের পক্ষ নিয়েছে আমেরিকা; এর বিপরীতে সিরিয়ার নির্বাচিত বৈধ সরকারকে সমর্থন দিচ্ছে মস্কো। এরমধ্যে গত সপ্তাহে আমেরিকা সিরিয়া ইস্যুতে রাশিয়ার সঙ্গে সব ধরনের যোগাযোগ বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে। এছাড়া, সিরিয়ার সরকারি সেনা অবস্থানে হামলার পরকিল্পনা প্রকাশ করেছে ওয়াশিংটন।

অন্যদিকে, সিরিয়ায় মোতায়েন নিজেদের সম্পদ রক্ষার ঘোষণা দিয়েছে রাশিয়া। এরইমধ্যে সিরিয়ায় এস৩০০ এবং এস৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা মোতায়েন করেছে মস্কো এবং মার্কিন সম্ভাব্য হামলার বিরুদ্ধে রুশ সামরিক বাহিনী হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছে। সিরিয়ার তারতুসে স্থায়ী ঘাঁটি প্রতিষ্ঠারও ঘোষণা দিয়েছে রাশিয়া। এছাড়া, সিরিয়ায় অনির্দিষ্টকালের জন্য সেনা মোতায়েন রাখার বিষয়ে আইন পাস করেছে রুশ সংসদ। রুশ সীমান্তের কাছে মার্কিন নেতৃত্বাধীন ন্যাটো সেনা মোতায়েনের বিরুদ্ধে রাশিয়াও সীমান্তে সামরিক উপস্থিতি জোরদার করেছে। কালিনিগ্রাদে পরমাণু ওয়ারহেড বহনে সক্ষম ইস্কান্দার ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন করেছে মস্কো। রুশমার্কিন উত্তেজনার ভেতরে রাশিয়া কয়েকদিন আগে পরমাণু সহযোগিতা চুক্তি ও প্লুটোনিয়াম ধ্বংসের চুক্তি স্থগিত করেছে।

এ অবস্থায় গরবাচেভ বলছেন, “এখনই জরুরিভাবে মূল কাজে ফিরে আসা দরকার। সেগুলো হচ্ছেপরমাণু নিরস্ত্রীকরণ, সন্ত্রাসবাদবিরোধী লড়াই এবং জলবায়ু ও পরিবেশের বিপর্যয় ঠেকানো।” এসব কাজের তুলনায় অন্যগুলো খুবই ক্ষীণ ও অপ্রয়োজনীয় বলে মন্তব্য করেন রাশিয়ার সাবেক এই প্রেসিডেন্ট।

রুশ সরকার সাইবার হামলার নির্দেশ দিয়েছে: আমেরিকা

রাশিয়ার ‘সবচেয়ে উঁচু পর্যায়’ থেকে আমেরিকার রাজনৈতিক সংস্থাগুলোর বিরুদ্ধে সাইবার হামলা চালানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযোগ করেছে মার্কিন সরকার। আমেরিকার ডিপার্টমেন্ট অব হোমল্যান্ড সিকিউরিটি এবং ডাইরেক্টর অব ন্যাশনাল ইন্টেলিজেন্স’র দপ্তর থেকে প্রকাশিত এক যৌথ বিবৃতিতে এ অভিযোগ আনা হয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, আমেরিকার বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান বিশেষ করে রাজনৈতিক দলগুলোর ইমেইল হাতিয়ে নেয়ার সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ডের নির্দেশ যে রুশ সরকার দিয়েছে সে ব্যাপারে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাগুলো নিশ্চিত হতে পেরেছে। আমেরিকার আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন প্রক্রিয়ায় হস্তক্ষেপ করার লক্ষ্যে এই ‘চুরি’ করা হয়েছে বলে বিবৃতিতে মন্তব্য করা হয়।

মার্কিন নিরাপত্তা সংস্থাগুলোর বিবৃতিতে বলা হয়, বিষয়টির গুরুত্ব ও স্পর্শকাতরতার কথা বিবেচনা করে এই সিদ্ধান্তে পৌঁছা যায় যে, রাশিয়ার সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে এ নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তবে আমেরিকার এ অভিযোগকে ‘বাজে কথা’ বলে তাৎক্ষণিকভাবে উড়িয়ে দিয়েছে রাশিয়া। রুশ প্রেসিডেন্টের আবাসিক দপ্তর ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ বলেছেন, “আবার আজগুবি কথা বলেছে আমেরিকা। প্রতিদিন আমাদের ইমেইল এবং ওয়েবসাইটগুলোতে এরকম হামলা হাজার হাজার বার চালানো হয়।”

গত জুন মাসে আমেরিকার ক্ষমতাসীন ডেমোক্র্যাটিক পার্টির কার্যনির্বাহী কমিটি বা ডিএনসি’র ওয়েবসাইট হ্যাক হয়। এর পরের মাসে অনুসন্ধানী ওয়েবসাইট উইকিলিক্স ডিএনসি’র ২০,০০০ ইমেইল প্রকাশ করে দেয়। সে সময় ডেমোক্র্যাট প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিলারি ক্লিন্টন অভিযোগ করেন, রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পকে আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ী করার লক্ষ্যে রাশিয়া ওই সাইবার হামলা চালয়েছে। তবে রাশিয়অ তখনও ওই অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে বলেছিল, আমেরিকায় কে ক্ষমতায় এল তা নিয়ে মস্কোর মাথাব্যাথা নেই। পার্সটুডে ২০১৬১০০৮

পাশ্চাত্যের সঙ্গে মিডিয়া যুদ্ধে রয়েছে রাশিয়া: প্রেসিডেন্ট পুতিনের মুখপাত্র

পাশ্চাত্যের সঙ্গে রাশিয়া মিডিয়া যুদ্ধাবস্থায় রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ। তিনি রাশিয়ার টিভিসি নেটওয়ার্ককে দেয়া সাক্ষাৎকারে বলেছেন, “তারা বলে রাশিয়ার ভাবমর্যাদা ভালো নয়। কিন্তু আপনারা কি জানেন কার ভাবমর্যাদা ভালো নয়আমেরিকার। আমরা বর্তমানে তথ্যের জগতে এই জগতের ধারকবাহকদের সঙ্গে মিডিয়া যুদ্ধে রয়েছি। বিশেষ করে আমাদের যুদ্ধ অ্যাংলোস্যাক্সন ও তাদের মিডিয়ার সঙ্গে।”

তিনি বলেন, এই যুদ্ধ ঘোষণা দিয়ে হতে হবে এমন কোনো কথা নেই। তবে এই যুদ্ধ গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক বিষয়কে প্রচারণা ও পাল্টাপ্রচারণার পর্যায়ে নামিয়ে দেয়। বিশ্ব অর্থনৈতিক তৎপরতায় আরো ঘনিষ্ঠভাবে জড়িয়ে যাওয়ার মাধ্যমে রাশিয়া এই সমস্যা কাটিয়ে উঠবে বলে পেসকভ আশা প্রকাশ করেন।

তিনি বলেন, এজন্য আমাদের চেষ্টা চালাতে হবে। আমাদের অর্থনীতিকে আরো বেশি প্রতিযোগী করে গড়ে তুলে আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে হবে। একমাত্র তখনই আমরা সুদৃঢ়ভাবে নিজেদের পায়ে দাঁড়াতে পারব।

ইউক্রেন সংকটকে কেন্দ্র করে রাশিয়ার সামরিক বাহিনী ও জ্বালানী খাতের ওপর বর্তমানে আমেরিকা ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন কঠিন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে রেখেছে। (রেডিও তেহরান, ২৫ মার্চ ২০১৬)

Advertisements
  1. কোন মন্তব্য নেই এখনও
  1. No trackbacks yet.

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: