প্রথম পাতা > অর্থনীতি, প্রযুক্তি, বাংলাদেশ, শিল্প > ধোলাইখাল ব্র্যান্ড সম্ভাবনার খাত

ধোলাইখাল ব্র্যান্ড সম্ভাবনার খাত

অক্টোবর 1, 2016 মন্তব্য দিন Go to comments

dholaikhal-workersইঞ্জিনযন্ত্রাংশ, গাড়ির ক্ষুদ্র পার্টসসহ প্রায় ২০০ ধরনের মেশিনারিজ উৎপাদন ও বাজারজাতের বিশাল সম্ভাবনার খাত হয়ে উঠেছে ‘ধোলাইখাল ব্র্যান্ড’। এ শিল্পের সঙ্গে সরাসরি সম্পৃক্ত পাঁচ লক্ষাধিক লোকের জীবিকা নির্বাহ হচ্ছে। ধোলাইখাল ব্র্যান্ডের কারিগররা বাইসাইকেল থেকে শুরু করে সব ধরনের গাড়ি, ট্রাক্টর, ক্রেন, রিরোলিং মিল, এমনকি ট্রেনের বগিসহ যাবতীয় যন্ত্রাংশ অনায়াসে প্রস্তুত করছেন।

বুয়েটের মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মাহাবুবুল আলম বলেন, দেশের এ হালকা প্রকৌশল শিল্পে প্রায় ৩ হাজার ৮০০ ধরনের যন্ত্র ও যন্ত্রাংশ তৈরি হচ্ছে, যার মধ্যে ১৩৭টি আইটেম রপ্তানি হচ্ছে বিশ্বের ১৭টি দেশে। পুরান ঢাকার মৈশুন্ডি, নবাবপুর, টিপু সুলতান রোড, বনগ্রাম, ওয়ারী ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় এ শিল্পের বিস্তৃতি ঘটেছে। ধোলাইখাল ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় রয়েছে ছোটবড় অর্ধলক্ষাধিক ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপ বা হালকা প্রকৌশল শিল্পের নানা স্থাপনা। এখানকার শ্রমিকদের বেশির ভাগেরই শিক্ষাগত যোগ্যতা নেই, নেই পুঁথিগত কারিগরি শিক্ষা। হাতের অভিজ্ঞতা আর চোখের মাপে তারা নিখুঁত থেকে নিখুঁততর মেশিনারি পার্টস তৈরি করেন। দেশের বাজারে এ শিল্পের এতটাই চাহিদা যে, ক্রেতারা যন্ত্রাংশ তৈরির জন্য উদ্যোক্তাদের অগ্রিম অর্থ দিয়ে বুকিং দিয়ে রাখছেন। অথচ দুই দশক আগেও বিভিন্ন শিল্প ও পরিবহন খাতের যন্ত্রাংশের পুরোটাই আমদানি করা হতো। যন্ত্রাংশ ছাড়াও নতুন আধুনিক যন্ত্রপাতি তৈরি হচ্ছে পুরান ঢাকার ধোলাইখালে।

দেশীয় চাহিদার প্রায় ৫০ শতাংশ পূরণ করে বিদেশেও রপ্তানি করছেন শিল্পোদ্যোক্তারা। ধোলাইখাল ব্র্যান্ডের উদ্যোক্তারা বিভিন্ন সরকারিআধাসরকারি প্রতিষ্ঠানে সাবকন্ট্রাক্টের মাধ্যমে যন্ত্র ও যন্ত্রাংশ সরবরাহ করে বিদেশনির্ভরতা কমিয়ে এনেছেন। বাংলাদেশ রেলওয়ে, বাংলাদেশ জুট মিলস করপোরেশন, বাংলাদেশ টেক্সটাইলস মিলস করপোরেশন, সিভিল এভিয়েশন, বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশন, বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর, বন্দর ও সমুদ্র পরিবহন কর্তৃপক্ষ, বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ, তিতাস, বাখরাবাদ ও জালালাবাদ গ্যাস কোম্পানি, চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশনসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে নিয়মিতভাবে যন্ত্র ও যন্ত্রাংশ সরবরাহ করা হচ্ছে এখান থেকে।

ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে অপার সম্ভাবনার দ্বার খুলে দিয়েছে পুরান ঢাকার ধোলাইখাল। এখানে ছোটবড় মিলিয়ে প্রায় পাঁচ হাজার খুচরা যন্ত্রাংশের দোকান রয়েছে। মোটর পার্টসের দোকান ছাড়াও এখানে রয়েছে ড্রামশিট, লেদ মেশিন, পুরনো লোহালক্কড়ের দোকান। লাইনার, পিস্টন, বিয়ারিং থেকে শুরু করে দেশিবিদেশি মোটর পার্টস, গাড়ির ব্রেকড্রাম, ইঞ্জিন, কার্টিজ, সকেট, জগ, জাম্পার, স্প্রিং, হ্যামার, ম্যাকেল জয়েন্ট, বল জয়েন্টসহ নানা সামগ্রী এখানেই তৈরি হচ্ছে। ধোলাইখালে তৈরি মেশিনারি পার্টস ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুরসহ নানা দেশে রপ্তানি হচ্ছে। এছাড়া ভালো রিকন্ডিশন্ড পার্টসের জন্য দেশব্যাপী সুনাম রয়েছে ধোলাইখালের। ইতিমধ্যে ধোলাইখাল পরিণত হয়েছে মিনি মোটর ইন্ডাস্ট্রিয়াল জোনে।

হালকা প্রকৌশল শিল্পমালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ ইঞ্জিনিয়ারিং ইন্ডাস্ট্রিজ ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিইআইওএ) সভাপতি আবদুর রাজ্জাক বলেন, দেশি তৈরি যন্ত্র ও যন্ত্রাংশের বিদেশে ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। প্রতি বছর শতাধিক আইটেম রপ্তানি করে গড়ে ৩০৪০ কোটি ডলার আয় হচ্ছে। বাংলাদেশ বছরে ৭ কোটি ৪০ লাখ ডলারের গাড়ির যন্ত্রাংশ আমদানি করছে। আর হালকা প্রকৌশল শিল্প থেকেই দেশের বাজারে সরবরাহ করা হয় ৭ কোটি ৫০ লাখ ডলার মূল্যের যন্ত্র ও যন্ত্রাংশ।

সমস্যা জর্জরিত কয়েক হাজার শিল্পকারখানা : নানা সমস্যায় জর্জরিত পুরান ঢাকার শ্যামপুরকদমতলী ছোট ও মাঝারি কয়েক হাজার বিভিন্ন শিল্পকারখানা। গ্যাসবিদ্যুৎ আর জলাবদ্ধতার সমস্যার সঙ্গে উদ্যোক্তাদের মধ্যে এবার যোগ হয়েছে সিটি করপোরেশনে অন্তর্ভুক্ত হওয়ানা হওয়া নিয়ে দ্বিধা। সামান্য জায়গা আর তাতেই কয়েকটি মেশিনে চলছে অবিরাম পণ্য তৈরির কাজ। পুরান ঢাকার শ্যামপুরকদমতলীতে অহরহ চোখে পড়বে এ চিত্র— ক্ষুদ্র যন্ত্রাংশ তৈরির কারখানা, প্লাস্টিক ও অ্যালুমিনিয়াম পণ্য তৈরির কারখানা, ছোট ছোট টেক্সটাইল মিল। আছে ডাইং, রিরোলিং মিল ও ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপ।

গত কয়েক দশকে নিজ উদ্যোগেই এখানে গড়ে উঠেছে এমন অজস্র ছোট ও মাঝারি শিল্প। সাধারণত বাংলাদেশ থেকে এয়ারকন্ডিশন ও রেফ্রিজারেটরের যন্ত্রাংশ, ফ্যান, বৈদ্যুতিক তার, ব্যাটারি, ভোল্টেজ স্টাবিলাইজার, বাইসাইকেল, মোটরগাড়ির ক্ষুদ্র যন্ত্রাংশ, সিরামিকস, ছোট মোটর যন্ত্রাংশ, পাইপ টিউব, ব্রয়লার, ডাইসসহ নানা ধরনের হালকা যন্ত্রপাতি বিদেশে রপ্তানি হয়। নেদারল্যান্ডস, জার্মানি, অস্ট্রিয়া, ফ্রান্স, ভারত, চীন, হংকং, দক্ষিণ কোরিয়া, তাইওয়ানসহ বিভিন্ন দেশে রপ্তানি হয় এসব পণ্য।

সূত্রঃ দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন, ১ অক্টোবর ২০১৬

Advertisements
  1. কোন মন্তব্য নেই এখনও
  1. No trackbacks yet.

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: