প্রথম পাতা > অপরাধ, আন্তর্জাতিক, ইতিহাস, স্বাস্থ্য > আলজেরিয়ায় ১৭টি পরমাণু বোমার পরীক্ষা হয়েছিলো !

আলজেরিয়ায় ১৭টি পরমাণু বোমার পরীক্ষা হয়েছিলো !

french-nuclear-testingফ্রান্স কয়েক দশক আগে আলজেরিয়ায় ১৭ টি পরমাণু বোমার পরীক্ষা চালিয়েছিল এবং এসব পরীক্ষার কারণে নিহত হয়েছিল ৪২ হাজারেরও বেশি আলজেরিয় নাগরিক।

এ ছাড়াও আলজেরিয়ার পারমাণবিক তেজস্ক্রিয়তার ধ্বংসাত্মক প্রভাব হাজার হাজার বছর পর্যন্ত টিকে থাকবে বলে সম্প্রতি দেশটির স্বাস্থ্যবিষয়ক একজন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

আলজেরিয়ায় ফরাসি দখলদারিত্ব এবং ঔপনিবেশিক শাসনামলের শেষের দিকে মানবতার বিরুদ্ধে এইসব মহাঅপরাধ ঘটায় ফরাসি সরকার।

নানা তথ্যপ্রমাণে দেখা গেছে ফরাসিরা ১৯৬০ সাল থেকে ১৯৬৬ সালের মধ্যে আলজেরিয়ায় ১৭টি পরমাণু বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়েছিল। প্রথম বোমাটি ফাটানো হয়েছিল ১৯৬০ সালে। ওই বোমার ধ্বংসাত্মক ক্ষমতা ছিল জাপানের হিরোশিমা শহরে নিক্ষিপ্ত মার্কিন পরমাণু বোমার ৬ গুণ বেশি। ১৭টি ফরাসি পরমাণু বোমার মধ্যে চারটি খোলা স্থানে এবং ১৩টি ভূগর্ভস্থ সুড়ঙ্গে ফাটানো হয়।

ফরাসি উপনিবেশবাদীরা মানবদেহে পরমাণু বোমার তেজস্ক্রিয়তার প্রভাব পরীক্ষার জন্য আলজেরিয়ার স্বাধীনতা সংগ্রামের সময় বন্দী হওয়া ২৪ হাজার মুক্তিযোদ্ধাকে এই ধ্বংসাত্মক পরীক্ষার গিনিপিগ হিসেবে ব্যবহার করে। এই ২৪ হাজার মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন আলজেরিয়ার জাতীয় মুক্তি ফ্রন্টের যোদ্ধা।

আলজেরিয়ার জাতীয় স্বাস্থ্য বিকাশ ও উন্নয়ন গবেষণা ফাউন্ডেশনের পরিচালক মুস্তাফা খাইয়াতি বলেছেন, আলজেরিয়ার বিশাল মরুভূমিতে ফ্রান্সের ধ্বংসাত্মক পরমাণু পরীক্ষাগুলোর প্রভাব হাজার হাজার বছর পর্যন্ত বজায় থাকবে। তিনি আরও জানিয়েছেন, আলজেরিয়ায় ১৯৬০ থেকে ১৯৬৬ সালে ফ্রান্সের ১৭টি পরমাণু বোমার পরীক্ষায় নিহত হয়েছেন ৪২ হাজারেরও বেশি আলজেরিয় এবং পারমাণবিক তেজস্ক্রিয়তার প্রভাবে আহত হয়েছেন মুসলিম ও আরব এই দেশটির হাজার হাজার নাগরিক। এছাড়াও আলজেরিয়ার জনগণ ও পরিবেশের নানা ধরনের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে এইসব বোমার ধ্বংসাত্মক তেজস্ক্রিয়তার কারণে।

এ সংক্রান্ত এক প্রতিবেদনে আরও জানা গেছে, আলজেরিয়ার মরুভূমিতে প্রথম ফরাসি পরমাণু বোমার পরীক্ষায় খরচ হয়েছিল ১২৬ কোটি ফ্রাঙ্ক। আর ফিলিস্তিন দখলদার ইহুদিবাদী ইসরাইলের সঙ্গে পরমাণুসহযোগিতা চুক্তির আওতায় প্যারিসকে ওই অর্থের যোগান দিয়েছিল তেলআবিব।

ফরাসি সরকার আলজেরিয়ার মরুভূমিতে ১৭টি পরমাণু বোমা পরীক্ষার বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানাতে সব সময়ই অস্বীকৃতি জানিয়ে আসছে এবং ওইসব পরীক্ষার জন্য ক্ষমাও চায়নি। এইসব পরমাণু বোমার পরীক্ষায় কোনও অপরাধে জড়িত হওয়ার কথাও স্বীকার করছে না ফরাসি সরকার। পরমাণু পরীক্ষার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত আলজেরিয় পরিবারগুলোকে ক্ষতিপূরণও দেয়নি ফ্রান্স।

উল্লেখ্য ফরাসি উপনিবেশবাদের বিরুদ্ধে স্বাধীনতার লড়াই চালাতে গিয়ে শহীদ হয়েছেন দশ লাখেরও বেশি আলজেরিয় নাগরিক। তেলসমৃদ্ধ মুসলিম এই দেশটি ১৯৬২ সালে স্বাধীনতা অর্জন করে।

সূত্রঃ পার্স টুডে, ২০১৬০৯০৭

Advertisements
  1. কোন মন্তব্য নেই এখনও
  1. No trackbacks yet.

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: