প্রথম পাতা > আন্তর্জাতিক, রাজনীতি > থাড ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়নের সিদ্ধান্তে অভিনব প্রতিবাদ !

থাড ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়নের সিদ্ধান্তে অভিনব প্রতিবাদ !

মাথা টাক করে মার্কিনবিরোধী প্রতিবাদ

THAD protestদক্ষিণ কোরিয়ার মফঃস্বল শহর সিয়ংজুতে শত শত মানুষ আমেরিকার অত্যাধুনিক ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা থাড মোতায়েন পরিকল্পনার বিরুদ্ধে নতুন করে বিক্ষোভ করেছে। এর অংশ হিসেবে অন্তত এক হাজার মানুষ নিজেদের মাথার চুল টাক করে ফেলেন। থাড মোতায়েনের পরিকল্পনা ঘোষণা পর শহরটিতে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে এবং কিছুদিন আগে শহরে দেশটির প্রধানমন্ত্রীর ওপর স্থানীয় লোকজন বিক্ষোভ করার সময় ডিম মেরেছিলেন।

সোমবার সিয়েংজু শহরের লোকজন বিক্ষোভ করে দাবি জানান যে, থাড মোতায়েনের জন্য তাদের শহরকে পছন্দের তালিকা থেকে বাদ দেয়া হোক। সময় অন্তত এক হাজার মানুষ তাদের মাথা টাক করে ফেলে। মাথার চুল টাক করা প্রসঙ্গে বিক্ষোভকারীদের নেতা কিম আনসু বলেন, “প্রতিবাদ জানানোর ক্ষেত্রে এটি হচ্ছে সবচেয়ে শক্তিশালী উপায়।তিনি আরো বলেন, “আমরা এর চেয়ে বড় প্রতিবাদ করতে পারব না।বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে অংশ নেয়া বহু তরমুজ চাষী বলেছেন, থাড ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা মোতায়েন করা হলে পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি হবে।

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট জিউন হ্যায় সোমবার টেলিভিশনে দেয়া বক্তৃতায় বলেছেন, “আত্মরক্ষার জন্য মার্কিন থাড ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা মোতায়েন করা হবে।এর পরপরই দক্ষিণ কোরিয়ার লোকজন নতুন করে প্রতিবাদবিক্ষোভে নামেন।

থাড মোতায়েনের বিরুদ্ধে দক্ষিণ কোরিয়ায় আবারো বিক্ষোভ

THAD missileদক্ষিণ কোরিয়ার মাটিতে অত্যাধুনিক মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা থাড মোতায়েনের বিরুদ্ধে দেশটির জনগণ রাতভর বৃষ্টি উপেক্ষা করে প্রতিবাদ জানিয়েছে। দক্ষিণ কোরিয়ার সিওনজু এলাকার যে স্থানে ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাটি মোতায়েন করা হবে সেখানকার একটি সরকারি ভবনের সামনে জড়ো হন বিক্ষোভকারীরা।

দক্ষিণ কোরিয়ার ভূমিতে টার্মিনাল হাই অ্যাল্টিটিউড এরিয়া ডিফেন্স বা থাড ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা মোতায়েনের সরকারি পরিকল্পনার বিরুদ্ধে দেশটির জনগণ গত ১৩ জুলাই থেকে বিক্ষোভ করে আসছে। উত্তর কোরিয়ার সম্ভাব্য পরমাণু বোমা এবং ক্ষেপণাস্ত্র হামলার মোকাবেলায় আগামী বছরের শেষের দিকে থাড মোতায়েন করার কথা রয়েছে।

রোববার রাতে বিক্ষোভকারী জনতার হাতে বহন করা ব্যানারে লেখা ছিল,’থাড মোতায়েনের বিরুদ্ধে আমরা আমরণ লড়াই করব।বিক্ষোভে অংশ নেয়া এক ব্যক্তি সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমেরিকা আমাদের জাতীয় স্বার্থকে অবহেলা করছে এবং আমাদের ওপর থাড মোতায়েনকে চাপিয়ে দিচ্ছে। আমি মনে করি, এর মাধ্যমে তারা দক্ষিণ কোরিয়ার পিঠে ছুরি মেরেছে।

থাড মোতায়েনের ফলে জনগণের স্বাস্থ্য এবং পরিবেশের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে বলে এর বিরুদ্ধে বিক্ষোভকারীরা আন্তর্জাতিক সমাজের দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করছেন।

এদিকে, রাশিয়া চীন মনে করে থাড মোতায়েনের পরিকল্পনা বাস্তবায়নের ফলে কোরিয় উপদ্বীপে নিরাপত্তা, স্থিতিশীলতা এবং শান্তি প্রক্রিয়ার মারাত্মক ক্ষতি হবে। পাশাপাশি এটি কোরিয় উপদ্বীপকে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ করার ক্ষেত্রে কোনো ভূমিকাই পালন করবে না বলে জানিয়েছে দেশ দুটি।

Advertisements
  1. কোন মন্তব্য নেই এখনও
  1. No trackbacks yet.

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: