আর্কাইভ

Archive for জানুয়ারি, 2016

কাবুলে নারীদের উচ্চশিক্ষার জন্য যুগান্তকারী পদক্ষেপ

জানুয়ারি 31, 2016 মন্তব্য দিন

kabul women's uni

কিছু কথা, যা আগে বলা হয়নি – অরুন্ধতী রায়

জানুয়ারি 31, 2016 মন্তব্য দিন

এটা ছিল না কোনো আনুষ্ঠানিক সাক্ষাত্কার, ছিল না চক্রান্তসদৃশ কোনো গোপন বৈঠক। (আমার কাছে এই সাক্ষাত্কার ইউএন সামিটের চেয়ে কোনো অংশে কম নয়)। কেননা এই সাক্ষাত্কারের ফলাফল ছিল জন কুসাক, ড্যানিয়েল এলসবার্গ এবং এডওয়ার্ড স্নোডেনকে একসঙ্গে পাওয়া। না, স্নোডেনের সঙ্গে দেখা করার জন্য আমাকে বাড়তি কোনো সতর্কতা বা কূটনৈতিক নিয়মকানুনের মধ্য দিয়ে যেতে হয়নি।words not spoken before

যেটা ফলাফল নয় সেটা হলো, সেই কক্ষ নম্বর ১০০১এর আনন্দঘন হাস্যরসাত্মক উষ্ণ মেজাজের পরিবেশটা আর কখনোই পুনরায় সৃষ্টি করতে না পারা। যদিও এটা দাবি করে, তবুও আসলে এটা লিখে নিখুঁতভাবে কখনোই প্রকাশ করা যাবে না। কারণ একবার যা ঘটে যায়, তা আবার ঘটানো যায় না। এই পৃথিবীটা যেন একটি সহস্রপদ কেন্নো বিছের মতোই, যার প্রতিটি অংশে প্রতিটি মুহূর্তে কতই না সত্যিকারের কথোপকথন, আলাপন হচ্ছে এবং অবশ্যই এই কথোপকথন সেই সত্যিগুলোর একটি।

সেই কক্ষে আমাদের আলাপের বিষয়বস্তুর চেয়ে সম্ভবত বেশি গুরুত্বপূর্ণ ছিল ওই কক্ষে অবস্থানরত মানুষগুলোর উদ্দীপনা। সেখানে ছিল এডওয়ার্ড স্নোডেন! /১১, বুশ, ইরাকযুদ্ধ আর স্নোডেনের ভূমিকা, এর পক্ষেবিপক্ষে থাকা—এসব নিয়ে এই কথোপকথনের জন্য সময়টা একটু দেরিতেই হলো অবশ্য। কিন্তু তারপরেও ইরাক, যার সব কিছুই ধ্বংসপ্রাপ্ত হয়েছে। আর ‘মধ্যপ্রাচ্য’! যাকে এখনো আমরা প্রসন্নচিত্তে ‘মধ্যপ্রাচ্যই’ বলি, তার মানচিত্র আঁকা হয়েছে নতুন করে এবং এখনো হচ্ছে। আমরা একে অন্যের সঙ্গে আলাপ করছিলাম রাশিয়ার এক উদ্ভট হোটেলে। অবশ্যই এটা উদ্ভট ছিল।

মস্কোর রিত্জ কার্লটনের প্রাচুর্যময় লবি পরিপূর্ণ ছিল—মাতাল সব মিলিয়নিয়ারে, যারা নেশাগ্রস্ত ছিল নতুন টাকার গন্ধে, টকটকে সুন্দরী, উচ্চপদস্থ অল্পবয়সী নারীরা, আধা শহুরে, আধা সুপারমডেল—যারা বাহুলগ্ন হয়ে ছিলো তাদের তোষামোদকারী পুরুষদের, বাজারে ছাড়া নতুন শেয়ার কিনে সৌভাগ্য আর খ্যাতির সন্ধানের হরিণের মতো ছুটে বেড়ানো কিছু জুয়াড়ি, যারা দেনাপাওনার হিসাব আগেই করে রেখেছিল। করিডোরের কোথাও চোখ ঝলসানো আলো, কোথাও উচ্চস্বরের গান আবার কোথাও নীরবতা। রুমে রুমে খাবার আর দামি বাসনে বোঝাই ট্রলি ঠেলে নিয়ে যাওয়া উর্দিপরা ব্যস্ত ওয়েটার। কক্ষ নম্বর ১০০১এ আমরা ক্রেমলিনের এতটাই কাছে ছিলাম যে জানালার বাইরে হাত বাড়ালেই ছোঁয়া যায়। বাইরে তুষারপাত হচ্ছিল, আমরা ক্রমেই তার গভীরে নিমজ্জিত হচ্ছিলাম। এই সেই রুশি শীত, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে যার অবদান কখনোই ভোলার নয়। এডওয়ার্ড স্নোডেন (এড)! নাহ, আমি যেমনটি ভেবেছিলাম ও তেমনটি তো নয়ই, বরং তারচেয়েও বেশি ছোটখাটো, শান্ত প্রকৃতির মানুষ। ছোট্ট, নম্র, পরিচ্ছন্ন, যেন বাড়িতে পোষা তুলতুলে একটি আদুরে বিড়াল। ও ড্যানকে (ড্যানিয়েল এলসবার্গ) বেশ পরমানন্দে সম্ভাষণ জানাল আর আমাদের আন্তরিক উষ্ণতার সঙ্গে। ‘আমি জানি, তুমি কেন এখানে?’ হেসে বলল এড। ‘কেন’? যেন আমার নিজস্ব বৈশিষ্ট্য দিয়ে আমাকে আলাদা করল, যার জন্য আমি এখানে ওদের সঙ্গে। আমিও হেসে উঠেছিলাম।

আমরা নানারকম পারচ, চেয়ার, টুল আর জনের (জন কুসাকের রুম) বিছানা ব্যবহার করছিলাম বসার জন্য। ড্যান আর এড খুবই খুশি ছিল একে অপরের সাহচর্য পেয়ে। একে অন্যকে বলার জন্য অনেক কথা জমা ছিল তাদের কাছে। নিজেকে খানিকটা অভব্য মনে হচ্ছিল তাদের মধ্যে অনধিকার প্রবেশে। এই মানুষ দুজন, যারা একসময় ভীষণ গোপনীয় কোড ল্যাংগুয়েজ ভাঙতে পেরেছিল। কে না জানে, সিআইএ আর এনএসএতে নিরাপত্তাজনিত কি সব কিম্ভূতকিমাকার কোড ব্যবহার করা হয়!

ড্যান ও এড মার্কিন নাগরিক হিসেবে পেন্টাগনে ও জাতীয় নিরাপত্তা এজেন্সিতে কাজ করার স্মৃতিচারণা করছিল। কিভাবে তারা প্রভাবিত হয়েছে মার্কিন ভুল নীতির বিপক্ষে। বিবেকের দংশনে তাদের গোপন নথি প্রকাশ করা এবং কিভাবেই বা তাদের জীবন পাল্টে গেল ইত্যাদি।

ড্যান একটু সময় নিয়ে বলতে শুরু করল—‘এটি সত্যি দুঃখের বিষয়, একজন আমেরিকান ও শিক্ষিত সচেতন মানুষ হিসেবে পেন্টাগন ও জাতীয় নিরাপত্তা এজেন্সিতে কাজ করেও আমেরিকার সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করা।’ ওদের দুজনের বক্তব্য প্রায়ই মিলে যায় মানবিকতা ও বিবেকের প্রশ্নে। হঠাৎ করেই তাঁদের মধ্যে এসব বিষয়ে বোধোদয় হয়েছে তা কিন্তু না। এটি শুরু হয়েছে সেই সময় থেকেই, ড্যানিয়েল যখন যুক্তরাষ্ট্রকে সমাজতন্ত্র থেকে মুক্ত করার মিশনে লিপ্ত ছিল। আর স্নোডেনের ক্ষেত্রে হয়েছে মুসলিম সন্ত্রাসবাদ থেকে আমেরিকাকে রক্ষা করার কাজে যোগদানের সময় থেকে।

এডের কাছে জানতে চেয়েছিলাম, ওয়াশিংটনের অন্য রাষ্ট্র ধ্বংস করার ক্ষমতা আর যুদ্ধ জয়ের অক্ষমতা সম্পর্কে। ‘প্রশ্নটা হয়তো একটু রূঢ় হয়েই গেল’, সে সময় এমনই মনে হচ্ছিল আমার, ‘মার্কিনরা শেষ কবে যুদ্ধে জয়লাভ করেছে’? আরো জানতে চেয়েছিলাম, ইরাকের ওপর অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা ও গণহত্যার বিষয়ে। কিভাবে সিআইএ জেনেছিল যে ‘বিশ্বে একটি রাষ্ট্র অন্য রাষ্ট্রের সঙ্গে শুধু যুদ্ধই করবে না, বরং রাষ্ট্রের ভেতরেও যুদ্ধ করতে হবে, যার জন্য গণনজরদারি প্রয়োজন। আর প্রশিক্ষিত ও দক্ষ হওয়া সত্ত্বেও একটি দেশের সেনাবাহিনী প্রশাসক হিসেবে পুলিশ বাহিনীর বিকল্প ভূমিকা পালন করে ইত্যাদি সম্পর্কে। স্নোডেন তার উত্তর শুরু করল একটি রাষ্ট্রের নাগরিকদের ওপর গোয়েন্দা নজরদারির বিষয় থেকে। ‘আমরা যদি কিছু না করেও, একটি সম্পূর্ণ নজরদারির রাষ্ট্রের মধ্যে বাস করি, যেখানে রাষ্ট্রটির মানুষের ওপর শক্তি প্রয়োগ ও সব কিছু জানার অতিমাত্রায় ক্ষমতা হাতে থাকে—তাহলে বিষয়টি হবে ভয়াবহ। এটি হলো অন্ধকার ভবিষ্যৎ। এখানে সত্য হলো, একদল লোক আমাদের সব কিছুর খবর রাখবে অথচ তাদের সম্পর্কে আমরা কিছুই জানব না। এর কারণ তারা গোপনীয় ও সুবিধাভোগী, তারা একটি আলাদা শ্রেণিঅনেকটা সমাজের ধনিক শ্রেণি ও রাজনীতিবিদদের মতো উঁচু স্তরের সম্পদশালী—তারা কোথায় থাকে, কী করে, তাদের বন্ধু কারা কিছুই আমরা জানি না। অথচ আমাদের সম্পর্কে সব কিছু জানার সক্ষমতা রয়েছে তাদের। আর এটিই হলো ভবিষ্যতের নির্দেশনা; কিন্তু আমি মনে করি, এ থেকে পরিবর্তনের সম্ভাবনা রয়েছে।’

আমি আশ্চর্য হয়েছি, যদিও স্নোডেনকে জিজ্ঞাসা করিনি—যদি তিনি সাদা না হয়ে কালোদের একজন হতেন, তাহলে তাঁর ভাগ্যে কী ঘটত?

অন্যদিকে ড্যান বলছিল ৯/১১এর পরের অবস্থা নিয়ে। ‘আসলে ৯/১১এর পর দৃশ্যপটের ব্যাপক পরিবর্তন হয়েছে। আমেরিকা হয়তো এখনো পুরোপুরি পুলিশি রাষ্ট্রে পরিণত হয়নি। তবে আরেকটি নাইন ইলেভেন হলে নিশ্চিত পুলিশি রাষ্ট্রে পরিণত হবে। এখনকার সাদা মানুষরা হয়তো পুলিশি রাষ্ট্রে বাস করছে না, কিন্তু যারা কালো, মিশ্র, মধ্যপূর্ব ভাগের মানুষ, তারা কিন্তু ঠিকই এর মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। তিনি ভবিষ্যতের দিকে ইঙ্গিত দিয়ে বলেন, পরবর্তী সময় নাইন ইলেভেনের মতো কোনো দুর্ঘটনা হলে তার ফলাফল ভয়াবহ হবে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের মতোই তখন শত শত ও হাজার ডিটেনশন ক্যাম্প হবে, অজস্র মানুষ গ্রেপ্তার হবে, মুসলিমদের ধরে ধরে ক্যাম্পে ঢোকানো হবে। আর এটি করা হবে কিন্তু বর্তমানে জনগণের ওপর নজরদারি থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ওপর ভিত্তি করেই। তারা জানে কাকে দূরে রাখতে হবে—কারণ তথ্য তাদের হাতেই আছে।’

প্রসঙ্গক্রমে আমাদের কথা হয়েছে—যুদ্ধ, লোভ, সন্ত্রাসবাদ, রাষ্ট্র, দেশপ্রেম, পতাকা, জনমত, নৈতিকতা, উদ্বাস্তু সমস্যা ইত্যাদি নিয়ে। স্নোডেনের ভাগ্যে কী আছে? সে কি কখনো আমেরিকায় ফিরতে পারবে? তার সম্ভাবনা খুবই ক্ষীণ। আমেরিকান সরকার, রাজনৈতিক দল ও প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে অপূরণীয় ক্ষতি করার জন্য যে কোনো মূল্যে স্নোডেনকে শাস্তি দিতে চায়। তারা তাকে জেলহাজতে নিতে বা হত্যা করতে না পারলেও সে যেন আরো বেশি তথ্য দিতে না পারে বা যতটুকু ক্ষতি করেছে তা পূরণ করা যায়, তার জন্য আমেরিকা কোনো চেষ্টাই বাদ রাখবে না।

পশ্চিমা মিডিয়ায় আমেরিকাকে ভালোবাসার প্রতীক হিসেবে জননিরাপত্তা বনাম গণনজরদারি নিয়ে বিতর্ক এখনো চলছে। এটি কি নৈতিক বা অনৈতিক? এটি ভুল না শুদ্ধ, তথ্য ফাঁসকারীরা দেশপ্রেমিক না দেশদ্রোহী? নৈতিকতার এ সংকীর্ণতা মাপার জন্য অন্য দেশ, সংস্কৃতি আবির্ভূত হচ্ছে—এমনকি তারা মার্কিন আগ্রাসনের শিকার হয়েও।

অদ্ভুতভাবে হলেও, আমি যখন মস্কোর রিত্জ কার্লটনে আমাদের সেই আলাপচারিতার কথা চিন্তা করি, আমার মনে ড্যানিয়েল এলসবার্গের ছবিটিই প্রথম ভেসে ওঠে। আমাদের মধ্যে যে কয় ঘণ্টা আলাপ হয়েছে, সে কয় ঘণ্টা ড্যান বিছানায় চিৎ হয়েই শুয়ে ছিল। খ্রিস্টের মতো তার দুটি হাত দুদিকে প্রসারিত ছিল। আনমনে বলছিল আমেরিকার পরিবর্তনের কথা, ‘শ্রেষ্ঠ মানুষদের’ হয় অবশ্যই জেলে যেতে হবে, নয় নির্বাসনে যাও। তার অশ্রু আমাকে ভীষণভাবে নাড়া দিচ্ছিল। এই অশ্রু সেই মানুষের, যার জীবন এখন সায়াহ্নে। যে একদা প্রথম শ্রেণির নাগরিক হিসেবে বিবেচিত হতো সেসব মানুষের সঙ্গে, যাদের হাতে নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা ছিল। যে ঠাণ্ডা মাথায় পৃথিবীর জীবন প্রধ্বংসী সব পরিকল্পনা করত, ধারণা দিত। সেই সব কিছুর ঝুঁকি নিয়ে শেষ পর্যন্ত মানুষের জন্যই তথ্য ফাঁস করল। ড্যানের কাছে তার বিরুদ্ধে আসা সব যুক্তির বিপরীতে পাল্টা যুক্তিও ছিল। সে আমেরিকার ইতিহাস ও পররাষ্ট্রনীতি সম্পর্কে বর্ণনা করতে গিয়ে প্রায়ই ‘সাম্রাজ্যবাদ’ শব্দটি বেছে নিচ্ছিল। পেন্টাগন পেপার জনসম্মুখে নিয়ে আসার ৪০ বছর পরও, সে সময়কার বিশেষ বিশেষ অনেক ব্যক্তিরই মৃত্যু ঘটেছে, কিন্তু তার জীবনযন্ত্র এখনো সচল রয়েছে, এটা সে উপলব্ধি করে। ড্যানিয়েল ও স্নোডেনের মতো সাহসী মানুষ আছে বলেই এখনো মানুষের মঙ্গল হয়। কি অপরাধ তারা করেছে? কেন তারা রাষ্ট্রদ্রোহী? তারা নিজের দেশের ও পৃথিবীর লোকদের কল্যাণের জন্য আত্মত্যাগ করেছে বলে?

ড্যানিয়েলের কান্না আমাকে ভাবিয়েছিল, আমাদের ভালোবাসা, পরাজয়, স্বপ্ন ও সবচেয়ে বেশি আমাদের ব্যর্থতা নিয়ে। দেশের জন্য আমাদের ভালোবাসাটা আসলে কী ধরনের ভালোবাসা? কেমন দেশের স্বপ্ন আমরা সব সময় দেখে এসেছি? কী রকমের স্বপ্ন আমরা দেখেছিলাম যে স্বপ্ন ভেঙে গেছে? সর্বোত্তম মহৎ জাতিটির মানবিকতার সক্ষমতা কি ঠিক ততখানি, যতখানি সক্ষমতা তার নিষ্ঠুরতা আর গণহত্যার? একটি দেশের সফলতার উচ্চতা কি এটাই নির্দেশ করে না যে ঠিক ততটুকুই তার নৈতিকতার পতনের গভীরতা? এবং কি আমাদের ব্যর্থতা? লেখক, শিল্পী, মৌলবাদী, বিশ্ব নাগরিক, বাউন্ডুলে, অসন্তুষ্ট বিদ্রোহীরা আমাদের স্বপ্ন আমাদের কল্পনা ব্যর্থতা কি? আমাদের ব্যর্থতায় কী ছিল যে শুধু দেশ ও পতাকার ধারণার সঙ্গে ভালোবাসার মতো নিষ্পাপ ধারণাকে এক করতে পারিনি? সব কিছু দেখেশুনে মনে হচ্ছে, মানুষ যুদ্ধ ছাড়া টিকে থাকতে অক্ষম, আবার তারাই ভালোবাসা ছাড়াও বেঁচে থাকতে অক্ষম? সুতরাং প্রশ্ন হচ্ছে—‘কী আমাদের ভালোবাসা উচিত?’

এই লেখাটি যখন লিখছি, তখন হাজার হাজার রিফিউজি ইউরোপ জুড়ে বন্যার মতো প্লাবিত হচ্ছে। যার জন্য দায়ী দশকেরও বেশি সময় ধরে চলে আসা মধ্যপ্রাচ্য, আমেরিকা ও ইউরোপের বিদেশনীতি। তাহলে স্নোডেনও কি রিফিউজি, হ্যাঁ, অবশ্যই তিনি একজন রিফিউজি। কারণ তিনি যা করেছেন তার জন্য মাতৃভূমিতে ফিরতে পারছেন না। বর্তমানে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশগুলো আফগানিস্তান, ইরাক ও সিরিয়া থেকে লাখো কোটি মানুষ তার মাতৃভূমি ছাড়তে বাধ্য হয়েছে। জীবনযাত্রা পরিবর্তনের এক অবর্ণনীয় কষ্টের মধ্যে দিন কাটাচ্ছে। আরেকজন রিফিউজির কথা মনে পড়ে যাচ্ছে, জানা মতে বর্তমান পৃথিবীর সবচেয়ে বড় রিফিউজি! জুলিয়ান অ্যাসেঞ্জ! যে চতুর্থ বছরের মতো লন্ডনের ইকুয়েডরিয়ান এমবাসিতে পলাতক অতিথি হিসেবে জীবন যাপন করছে। এখন পর্যন্ত যার দরজার ঠিক সামনে ছোট্ট লবিতে অস্ত্র হাতে পুলিশ মোতায়েন করা আছে, ছাদে আছে স্নাইপার। তাকে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা নিয়ে, তাকে গুলি করার অর্ডার নিয়ে। টেনেহিঁচড়ে তাকে বের করে নিয়ে আসা হবে, যদি সে পায়ের বুড়ো আঙুলটাও বাইরে বের করে। হ্যাঁ, এটাই আমাদের আন্তর্জাতিক সীমান্তের প্রচলিত বৈধ আইন!

নিজের দেশ থাকা সত্ত্বেও বিশ্বের কাছে এই মানুষগুলোর পরিচয় হয়েছে ‘রিফিউজি’ হিসেবে। এটি আমাদের জন্য লজ্জার।

কবিতাঃ মহররম – কাজী নজরুল ইসলাম

জানুয়ারি 31, 2016 মন্তব্য দিন

নীলসিয়া আস্মান লালে লাল দুনিয়া,-
আম্মা
! লা’ল তেরি খুন কিয়া খুনিয়া।’
কাঁদে কোন্ ক্রন্দসী কারবালা ফোরাতে
,
সে কাঁদনে আঁসু আনে সীমারেরও ছোরাতে।

রুদ্র মাতম্ ওঠে দুনিয়া
দামেশ্কে
জয়নালে পরালো এ খুনিয়ারা বেশ কে।’

হায় হায় হোসেনা
,’ ওঠে রোল ঝঞ্ঝায়।
তল্ওয়ার কেঁপে ওঠে এজিদেরো পঞ্জায়।

উন্মাদ দুল্দুল ছুটে ফেরে মদিনায়
,
আলি
জাদা হোসেনের দেখা হেথা যদি পায়।
মা ফাতিমা আস্মানে কাঁদে খুলি’ কেশপাশ
,
বেটাদের লাশ নিয়ে বধূদের শ্বেত বাস।

রণে যায় কাশিম ঐ দু’ঘড়ির নওশা
,
মেহেদীর রঙটুকু মুছে গেল সহসা।

হায় হায়’ কাঁদে বায় পূরবী ও দখিনা

কঙ্কন পঁইচি খুলে ফেল সকীনা।’

কাঁদে কে রে কোলে ক’রে কাসিমের কাটা
শির।
খান খান খুন হয়ে ক্ষরে বুক
ফাটা নীর।
কেঁদে গেছে থামি’ হেথা মৃত্যু ও রুদ্র
,
বিশ্বের ব্যথা যেন বালিকা এ ক্ষুদ্র।

গড়াগড়ি দিয়ে কাঁদে কচি মেয়ে ফাতিমা

আম্মা গো
, পানি দাও, ফেটে গেল ছাতি, মা।’
নিয়ে তৃষা সাহারার দুনিয়ার হাহাকার
,
কারবালা
প্রান্তরে কাঁদে বাছা আহা কার!
দুই হাত কাটা তবু শের
নর আব্বাস,
পানি আনে মুখে
, হাঁকে দুষমনও ‘সাব্বাস্’!
দ্রিম্ দ্রিম্ বাজে ঘন দুন্দুভি দামামা
,
হাঁকে বীর
, ‘শির দেগা, নেহি দেগা আমামা!’
কলিজা কাবাব
সম ভুনে মরুরোদ্দুর,
খাঁ খাঁ করে কারবালা
, নাই পানি খর্জুর।
মা’র স্তনে দুধ নাই
, বাচ্চারা তড়পায়,
জিভ চুষে কচি জান থাকে কি রে ধড়টায়
?
দাউ দাউ জ্বলে শিরে কারবালা
ভাস্কর,
কাঁদে বানু
– ‘পানি দাও, মরে জাদু আসগর!’
পেলো না তো পানি শিশু পিয়ে গেল কাঁচা খুন
,
ডাকে মাতা
,- ‘পানি দেবো ফিরে আয় বাছা শুন্!’
পুত্রহীনার আর বিধবার কাঁদনে

ছিঁড়ে আনে মর্মের বত্রিশ বাঁধনে
!
তাম্বুতে শয্যায় কাঁদে একা জয়নাল
,
দাদা
! তেরি ঘর কিয়া বরবাদ পয়মাল্!’
হাইদরী হাঁক হাঁকি’ দুলদুল
আসওয়ার
শম্সের চম্কায় দুষমনে ত্রাসবার।

খ’সে পড়ে হাত হ’তে শত্রুর তরবার
,
ভাসে চোখে কিয়ামতে আল্লার দরবার।

নিঃশেষ দুষমন্
; ও কে রণশ্রান্ত
ফোরাতের নীরে নেমে’ মোছে আঁখি
প্রান্ত!
কোথা বাবা আস্গর
? শোকে বুক ঝাঁঝরা,
পানি দেখে হোসেনের ফেটে যায় পাঁজরা
!
ধুঁকে ‘ম’লো
, আহা, তবু পানি এক কাৎরা
দেয়নি রে বাছাদের মুখে কম্জাতরা
!
অঞ্জলি হ’তে পানি পড়ে গেল র্ঝর্ঝ

লুট ভূমে মহাবাহু খঞ্জর
জর্জর!
হল্কুমে হানে তেগ ও কে বসে ছাতিতে
?-
আফ্তাব ছেয়ে নিল আঁধিয়ারা রাতিতে।

আস্মান ভরে গেল গোধূলিতে দুপুরে
,
লাল নীল খুন ঝরে কুফরের উপরে
!
বেটাদের লোহু
রাঙা পিরহান হাতে, আহ্
আরশের পায়া ধরে কাঁদে মাতা ফাতেমা
,
এয়্ খোদা
, বদলাতে বেটাদের রক্তের
মার্জনা করো গোনা পাপী কম্বখতের’

কত মহররম এলো
, গেল চলে বহু কাল
ভুলি নি গো আজো সেই শহীদের লোহু লাল।

মুসলিম
! তোরা আজ ‘জয়নাল আবেদীন’।
ওয়া হোসেনা
ওয়া হোসেনা’ কেঁদে তাই যাবে দিন!
ফিরে এলো আজ সেই মহররম মাহিনা
,
ত্যাগ চাই
, মর্সিয়া ক্রন্দন চাহি না।
উষ্ণীষ কোরানের
, হাতে তেগ্ আরবীর,
দুনিয়াতে নত নয় মুসলিম কারো শির
,-
তবে শোন ওই শোন বাজে কোথা দামামা
,
শমশের হাতে নাও
, বাঁধো শিরে আমামা।
বেজেছে নাকাড়া হাঁকে নাকিবের তুর্য

হুঁশিয়ার ইসলাম ডুবে তব সূর্য

জাগো ওঠো মুসলিম হাঁকো হায়দারী হাঁক

শহীদের দিলে সব লালে লাল হয়ে যাক।

নওশার সাজ নাও খুন খচা অস্তিন

ময়দানে লুটাতেরে লাশ এই খাস দিন

হাসানের মত পিব পিয়ালা সে জহরের

হোসেনের মত নিব বুকে ছুরি কহরের

আসগর সম দেব বাচ্চাদের কুরবান

জালিমের দাদ নেব দেব আজগোর জান

সখিনার শ্বেত বাস দেব মাতা কন্যায়

কাশিমের মত দেব জান রুধি অন্যায়

মহরম কারবালা কাঁদো হায় হোসেনা

দেখ মরু সূর্য এ খুন যেন শোষে না।

১৩০ বছরব্যাপী ক্রমবিকাশের ধারায় গাড়ী প্রযুক্তি

জানুয়ারি 31, 2016 মন্তব্য দিন

automobile history

কার্টুন-রঙ্গঃ চুরি-ছিনতাইয়ের রকমফের

জানুয়ারি 31, 2016 মন্তব্য দিন

mugging-1mugging-2mugging-3thief questionedstealing CC camerastealing-1stealing-3thief playing harmoniumthieves protect

মধ্যপ্রাচ্যে সন্ত্রাস সৃষ্টিতে লিপ্ত সৌদী-সিআইএ জোট

জানুয়ারি 31, 2016 মন্তব্য দিন

cia-jihadi-1cia-jihadi-2acia-jihadi-2b

রবীন্দ্র কুঠিবাড়ী ও তাঁতশিল্প খ্যাত শাহজাদপুর

জানুয়ারি 31, 2016 মন্তব্য দিন

shahzadpur-1shahzadpur-2shahzadpur-3